আমাদের সময়ের অংশীদার ২ – ফ্রেন্ড সার্কেল ও সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

প্রথম পর্বটি পড়ে হয়ত আপনাদের মনে হতে পারে বেশ উপদেশমূলক কথা বলে ফেলেছি। সত্যি বলতে আপনি এখন যেভাবে আপনার সন্তানের সাথে আচরণthumbsup করছেন তার প্রভাব তার মধ্যেও পড়ছে এবং তা আপনি দেখতে পারবেন যখন সে কিশোর বা যুবক হয়ে উঠবে তখন। তাই বলে আমি বলছিনা আপনার মা-বাবার সাথে আপনি সে রকম ব্যবহার করবেন যেভাবে তিনি আপনার সাথে করেছেন। শুধু মা-বাবা কেন আমাদের সবার সাথেই উত্তম ব্যবহার করা উচিত।

আমি এই পর্বে মুদ্রার অপর দিকটি তুলে ধরতে চেষ্টা করব, ইনশাআল্লাহ। সন্তানরা তাদের মা-বাবার সাথে কিভাবে সময় ব্যয় করে থাকে, আর বুঝাতে চেষ্টা করব কেমন ব্যবহার করা প্রয়োজন।

ফেসবুকের একটা আপডেট পড়ুন – “I’m worried 4 my mom because she is hospitalized nd I’ve not seen her fm last 1 week”. এটা আমার এক বন্ধুর আপডেট, আর দুঃখের ব্যপার হল সে আমার পাশে বসে এই আপডেট দিয়েছে যখন তার মা শয্যাশায়ী। কারও মা-বাবা যখন অসুস্থ থাকে তখন সে কেমন করে ফেসবুকে বসে এইসব আপডেট দিয়ে অযথা সময় নষ্ট করতে পারে তা আমার বুঝে আসেনা! আমি তাকে বললাম – “তুই এখানে কি করছিস? আমাদের সাথে বসে আড্ডা আর ফেসবুকে আপডেট দিচ্ছিস, ছিঃ সুমন খুব খারাপ ব্যপারটা। আন্টির কাছে যা; কাছে থাকলে উনার ভাল লাগবে, সাহস পাবে।” তার উত্তরটি ছিল এরকম – “আম্মার কাছে গিয়ে আমি কি করব। বাসার অন্যান্যরা আছে ওখানে; আর হাসপাতালের ডাক্তার এবং নার্স তো আছেই ইমারজেন্সির জন্য।” আল্লাহু আকবর।

আমরা আজকাল আমাদের ঘনিষ্ঠ কেউ অসুস্থ হলে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটসগুলোতে আপডেট দিয়েই আমাদের কাজ শেষ মনে করি। আমার কথা হচ্ছে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটস না থাকলে আমরা কি করতাম? পিতা-মাতার প্রতি সন্তানের কর্তব্য পালনে রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন, আবু হুরায়রা (রাদিয়াল্লাহু আনহু) থেকে বর্ণিত –

“একদিন একজন লোক রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-এর কাছে হাযির হয়ে বললেন, হে আল্লাহর রাসূল – আমার কাছে সবচেয়ে উত্তম ব্যবহার পাওয়ার অধিকারী কে? তিনি বললেন, তোমার মা। লোকটি জিজ্ঞেস করল, তারপর কে? তিনি বললেন, তোমার মা। সে লোকটি আবারও প্রশ্ন করলো, তারপর কে? তিনি বললেন, তোমার মা। লোকটি আবারও জিজ্ঞেস করল, তারপর কে? তিনি বললেন, তারপর তোমার পিতা” [সাহীহ বুখারী]

এই হাদিস থেকে আমরা বুঝতে পারি মা-বাবা আমাদের উপর কতটূকু অধিকার রাখেন; শতকরা হারে বলা যায় মা ৭৫% এবং বাবা ২৫%। আর আমরা সন্তানরা মা-বাবার থেকে দূরে থাকি যখন তাদের আমাদেরকে খুব বেশি প্রয়োজন। দেখুন যারা একসময় আপনার ছোট থেকে ছোট ইচ্ছা এবং অভাব পূরণ করতে এতটুকু দ্বিধাবোধ করেননি। হয়ত এরকমও ঘটনা আছে মা-বাবা না খেয়ে সন্তানদের খাইয়েছেন, ঈদের জামা নিজে না পরে সন্তানদের পরিয়েছেন অথবা রাত জেগেছেন কান্না থামানোর জন্য। আর মা-বাবা যখন বৃদ্ধ অথবা অসুস্থ হয়ে পড়ছেন আমরা আমাদের মূল্যবান সময় থেকে এতটুকু সময়ও বের করতে পারছিনা তাদের জন্য। আল্লাহ আমাদের সাহায্য করুন।

বেশিরভাগ ছেলেমেয়ের সাথে কথা বললে দেখবেন তারা বাসায় অবসর সময় কাটাচ্ছে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটসগুলোতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফ্রেন্ডসদের স্ট্যাটাস এর উপর কমেন্ট অথবা নতুন ছবি আপলোড করে। আমি বলছিনা এসব সাইটসগুলোতে কোনও উপকারিতা নেই। এখন এসব সাইটসগুলোতে অনেক ইসলামিক পেইজ হচ্ছে; আর আন্তর্জাতিক পর্যায়ের অনেক স্কলারসরাদের কাছ থেকে অনেক জীবনঘনিষ্ঠ উত্তরও পাওয়া যাচ্ছে। আবার অনেকের ক্ষেত্রে দেখা যাবে; ছেলেমেয়েরা বন্ধের দিন অথবা বিকেলে বাসার থেকে বাইরেই থাকতে বেশি স্বাচ্ছন্দ বোধ করে। প্রিয় ফ্রেন্ড সার্কেলদের প্রাধান্য তাদের জীবনে অনেক বেশি, যেন তারাই তাদের ভরণ-পোষণ দেয় আর দেখাশোনা করে। বেশিরভাগ সময় আমরা যেসব বিষয় নিয়ে ফ্রেন্ডসদের সাথে আড্ডা দেই তা আমাদের জীবনে কোনো উন্নতিকর প্রভাব ফেলেনা। হ্যাঁ, যদি কোন প্রডাকটিভ আলোচনা যেমন ইসলাম, সমাজ ও দেশের উন্নয়ন ইত্যাদির ব্যপারে কথা হত; তখন এতে কোন সন্দেহ নেই যে এটা খুব ভাল ব্যপার। তাই বলে আবার মা-বাবার প্রয়োজনের সময় ভুলে গিয়ে যে কোন ধরণের ডিসকাশেনই আমাদের অংশগ্রহণ করা নয়। আল্লাহ সুবহানাহুতালা কুরআনে বলছেন –

وَقَضَى رَبُّكَ أَلاَّ تَعْبُدُواْ إِلاَّ إِيَّاهُ وَبِالْوَالِدَيْنِ إِحْسَانًا إِمَّا يَبْلُغَنَّ عِندَكَ الْكِبَرَ أَحَدُهُمَا أَوْ كِلاَهُمَا فَلاَ تَقُل لَّهُمَآ أُفٍّ وَلاَ تَنْهَرْهُمَا وَقُل لَّهُمَا قَوْلاً كَرِيمًا
“তোমার পালনকর্তা আদেশ করেছেন যে, তাঁকে ছাড়া অন্য কারও এবাদত করো না এবং পিতা-মাতার সাথে সদ্ব-ব্যবহার কর। তাদের মধ্যে কেউ অথবা উভয়েই যদি তোমার জীবদ্দশায় বার্ধক্যে উপনীত হয়; তবে তাদেরকে ‘উহ’ শব্দটিও বলো না এবং তাদেরকে ধমক দিও না এবং বল তাদেরকে শিষ্ঠাচারপূর্ণ কথা।” (সূরা বনী ইসরাঈলঃ ১৭:২৩)

ছেলেমেয়েরা যেভাবে বাসায় তাদের মা-বাবার সাথে সুন্দর ব্যবহারের মাধ্যমে সময় ব্যয় করতে পারে এ ব্যপারে কিছু সাধারন ধারণা দেওয়া যেতে পারে –

  • কমপক্ষে এটা বলতে পারি সব ফ্যামিলিই রাতে খাওয়ার টেবিলে একসাথে হয়। আপনি এখানে মা-বাবার সাথে বিভিন্ন ব্যাপার যেমন মায়ের সারাদিন কেমন গেল অথবা বাবার অফিস কেমন কাটল এসব ব্যপার নিয়ে কথা বলতে পারেন।
  • মা-বাবাকে মাঝে মাঝে সামান্য কিছু সুন্দর গিফট দিতে পারেন (যেমন রান্নার উপকরণ, জামা, মানিব্যাগ, কলম) যা পেয়ে উনারা খুব খুশি হতে পারেন।
  • মাকে রান্নার কাজে সাহায্য করতে পারেন বিশেষ করে বন্ধের দিনে অথবা তাদের জন্য স্পেশাল কিছু রান্না করে ফেলেন (কাচ্চি, ইলিশ মাছ, বিভিন্ন রকম ভর্তা, মুরগীর কোরমা) ইত্যাদি।
  • মা-বাবা যখন অসুস্থ তাদের সেবা দেওয়া, পাশেপাশে থাকা এবং সঠিকভাবে তাদের দেখাশোনা করা
  • দেশের বাইরে বা দূরে থাকলে প্রতিদিন একবার অথবা প্রতি সপ্তাহে কয়েকবার ফোন করে খোঁজখবর নেওয়া
  • মা-বাবার কথা মনযোগ দিয়ে শোনা এবং তাদেরকে মাথা ঠাণ্ডা করে সুন্দর উত্তর দিয়ে বুঝানোর চেষ্টা করা

আজকাল আবার নতুন একটা জিনিস যোগ হয়েছে মা ও বাবা দিবস। একটাদিনে “মা-দিবস” আর “বাবা-দিবস” পালন করেই শেষ; যেন এটা হচ্ছে সারা বছরের কাফফারা (প্রতিদান) স্বরূপ। সারাদিন আর সারাবছর কোন খোঁজ-খবর নেই আর একদিন একটা দিবসের নাম দিয়ে সেদিন গিফট বা রেস্টুরেন্টে ট্রিট দিয়েই আমাদের ভালবাসা প্রকাশ করেই আমরা ক্ষান্ত। এরকম করে ভালবাসা প্রকাশ করে আমরা কি এমন আকাশ পাতাল তফাৎ করছি এই সুন্দর সম্পর্কের? ব্যপারটা যেন এরকম মা-বাবাদের সাথে আমাদের একটা চুক্তি হয়েছে আমরা তাদের এই দিবসগুলোতে একদিনই তাদের খেয়াল রাখব আর উনারা আমাদের প্রতিদিন খেয়াল রাখবেন আর সেবা করবেন। বাহ! কি সুন্দর অনুপাত – ১ দিন : ৩৬৪ দিন। আবার এইদিন গুলোতে ফেসবুকে ইউজারদের দেখা যাবে খুব তৎপরতা, মানে তারা মা-বাবাকে নিয়ে খুব চিন্তিত। আর ফ্রেন্ডসদের মাঝে ডিসকাশন আমি আমার মায়ের জন্য এটা করেছি সেটা করেছি। অথচ দেখা যাবে পরের দিন থেকে মা-বাবার আর কোন খোঁজখবর নেওয়ার সময় নেই এইসব বেশিরভাগ ইউজারদের।

*বৃদ্ধ বাবা আর চড়ুই পাখির একটা গল্প আপনারা হয়ত সবাই শুনেছেন এবং দেখেছেন। যেখানে বাবা তার ছেলের একই প্রশ্নের বার বার উত্তর দেন এবং তিনি মোটেই বিরক্ত নন এতে। বরং যা বাবা বলেছিলেন তা তিনি তার ডায়েরীতে লিখে রেখেছিলেন এভাবে – “আমি তাকে আনন্দে প্রতিবার জড়িয়ে ধরছিলাম যতবার সে আমাকে এটা জিজ্ঞাসা করছিল, বার বার এবং এতে আমার একদম মেজাজ খারাপ হচ্ছিলনা, বরং অনুভব করছিলাম তার জন্য আরও বেশি আদর ও স্নেহ”। আর বাবা তার ছেলেকে মাত্র তিন-চারবার জিজ্ঞাসা করাতেই সে খুব ক্ষেপে বাবাকে ধমক দিয়ে উঠেছিল। যা কক্ষনই কাম্য নয়।

আমি এই এই বৃদ্ধ বাবার গল্পটির মাধ্যমে যা বুঝতে চেয়েছি তা হলো আমাদের মা-বাবা আমাদের কাছ থেকে কি ধরণের ব্যবহার আশা করেন। আমরা আমাদের মা-বাবাদের প্রতিদিন খেয়াল রাখব এটাই আমাদের কর্তব্য। আল্লাহ আমাদেরকে সাহায্য করুন এই কর্তব্য যথাযথভাবে পালন করতে। আর আল্লাহ সুবহানাহুতালার কাছে দুয়া করব তিনি আমাদের কুরআনে যা বলেছেন –

رَّبِّ ارْحَمْهُمَا كَمَا رَبَّيَانِي صَغِيرًا
“আমার প্রভু – তাদের উভয়ের প্রতি রহম কর, যেমন তারা আমাকে শৈশবকালে লালন-পালন করেছেন।” (সূরা বনী ইসরাঈল ১৭:২৪)

——

*বিঃদ্রঃ- বৃদ্ধ বাবা আর চড়ুই পাখির গল্পটির ভিডিও দেখতে এই লিংকএ যেতে পারেন। Link – http://www.youtube.com/watch?v=2kpLDkWg5DA

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s