জুম’আর নামায হতে পারে আমাদের পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের অনুপ্রেরণা

আমরা সাধারণ মুসলিমরা প্রতিদিন অনেক ভাল কাজ করি, যেমন আমাদের পরিচিতদের আমারা সালাম দেই, মা বাবার সাথে ভাল ব্যবহার করি, জুম’আর নামায পড়ি, দানখয়রাত করি। আমাদের এই ভাল কাজগুলোকে সবার সামনে তুলে ধরাটাই হচ্ছে এই লেখার মূল উদ্দেশ্য। আর এর মাধ্যমে আমি চেষ্টা করব সাধারণ মুসলিমদেরকে আর একটু ভাল অথবা প্র্যাকটিসিং মুসলিম হয়ে গড়ে উঠতে সাহায্য করতে। আর মাধ্যম হচ্ছে আমরা যে ভাল কাজগুলো করি সে কাজগুলোকেই তাদের সামনে প্রতীয়মান করার দ্বারা। এই ভাল কাজগুলোকে নিয়ে আমার এই ধারাবাহিক প্রবন্ধে কাজ করব ইনশাল্লাহ্, যার মাধ্যমে আমরা আমাদের মূল লক্ষ্য স্থির করে মুসলিম জীবনের প্রকৃত সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হতে পারি।

লেখাটি একটি ঘটনা দিয়ে শুরু করলে হয়ত আপনাদের ভাল বুঝাতে পারব। বন্ধের দিন আমরা বন্ধুরা সবাই মিলে আড্ডা দেই। আর তাই এবার আমরা শুক্রবার দিনটিকে ঠিক করলাম সবাই একসাথে দেখা করব এবং কিছু কোয়ালিটি টাইম স্পেন্ড করব বলে। যেহেতু আমরা সদ্য ইউনিভার্সিটি থেকে বের হয়ে কর্পোরেট জগতে প্রবেশ করেছি সেহেতু বুঝতেই পারছেন আমাদের কী নিয়ে কথা হতে পারে। চাকরি, বিয়ে, ঘরসংসার, প্রোমোশন এইসব রিয়েলিস্টিক ও রোমাঞ্চকর আলোচনাতে আমরা সবাই মেতে উঠলাম, তখন তা যেন থামতেই চাইছেনা। মজার কিংবা দুঃখের যাই বলেননা কেন, ব্যাপার হচ্ছে এই আড্ডার সন্ধ্যাতে আমরা ভুলেই গিয়েছিলাম যে কিছুক্ষন পর ইশার নামাযের জন্য রওনা দেওয়া লাগবে। সবাইকে একসাথে পেয়ে আমি নামাযে যাওয়ার কথা বলে ফেললাম। আর তাতেই হয়েছে আমার কাল, সবাই আমাকে পেয়ে বসল এবং বলা শুরু করল “বেশ উপদেষ্টা হয়ে গেছ, তুমি যাও নামাযে, নিজের চরকায় তেল দাও” এবং এধরণের আরো অনেক কথা।

বেশ ভালই লাগছিল তাদের কথা শুনতে, কারণ আমারও সময় আসবে। আর আমার কৌশল হচ্ছে “আগে বলতে সুযোগ দাও, তারপর আমি বলব।” আর যেহেতু ঘনিষ্ঠ বন্ধু সবাই, সেহেতু আমার কথা শুনতে বাধ্য করতেও দ্বিধা নেই আমার। আর ইসলামের দাওয়াত দেওয়ার কাজে এই সুযোগগুলো হারালে চলবেনা। আমিও তখন তাদের বললাম এবার আমি তোমারদের কিছু বলতে চাই আর তা হল “আমি যেখানে দিনে পাঁচবার যাই তোমারাও সেখানে যাও, কিন্তু সপ্তাতে একবার, যা নিঃসন্দেহে একটি ভাল কাজ। আর এই ভাল কাজ যদি দিনে পাঁচবার করার সুযোগ পাওয়া যায় ক্ষতি কিসের তা বার বার করতে? আল্লাহ্‌ (সুবহানাহু ওয়া তায়ালা) পবিত্র কুরআনে বলছেন:

“… নিশ্চয় সালাত অশ্লীল ও মন্দ কাজ থেকে বিরত রাখে। আর আল্লাহর স্মরণই তো সর্বশেষ্ঠ। আর আল্লাহ জানেন যা তোমরা কর।” [আল কুরআন ২৯:৪৫]

এতে কোন সন্দেহ নেই যে জুম’আর নামায আমাদের প্রত্যেক মুসলিমের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি আমাদের সাপ্তাহিক নামায এবং আল্লাহ্‌ (সুবহানাহু ওয়া তায়ালা) তা আমাদের প্রিয় নবী মুহাম্মাদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর উম্মতের উপর অর্পণ করেছেন। রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেনঃ

“পাঁচ বেলা সালাত আদায়, এক জুম্’আ থেকে পরবর্তী জুম্’আ, এক রমজান থেকে পরবর্তী রমজানের মধ্যবর্তী সময়ে হয়ে যাওয়া সকল (সগিরা) গুনাহের কাফফারা স্বরূপ, এই শর্তে যে, বান্দা কবীরা (বড়) গুনাহ থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখবে”। [সহীহ মুসলিম]

আলহামদুলিল্লাহ; এটি খুবই ভাল যে আমরা মুসলিমরা জুম’আর নামাযটা যথাযথভাবে আদায় করতে চেষ্টা করি। এই দিনে আমরা পবিত্রতা অর্জন করি, পরিষ্কার জামা পরে, বিনয় ও একাগ্রতার সাথে মসজিদগামী হই নামায শুরুর অনেক পূর্বেই; কিছু নফল নামায পড়ব এবং খুতবা শুনব বলে।

কিন্তু আমাদেরকে পাঁচ ওয়াক্ত ফরয নামাযের যে তাগিদ আল্লাহ্‌ (সুবহানাহু ওয়া তায়ালা) দিয়েছেন তা আমাদের চিন্তারই বাইরে থেকে যাচ্ছে। আমাদের মনে একটুও প্রশ্ন জাগেনা যে আল্লাহ্‌ তা’লা মানবজাতিকে কেন সৃষ্টি করেছেন। শুধুই মানুষের নিজের আনন্দের জন্য? নাকি মানুষ তার নিজের খেয়াল খুশি মত চলবে এজন্য? বরং আল্লাহ্‌ (সুবহানাহু ওয়া তায়ালা) মানব জাতিকে উদ্দেশ্য করে কুরআনে বলছেন, তিনি আমাদেরকে কী কারণ ও উদ্দেশ্যে সৃষ্টি করেছেন। আর তা হচ্ছে শুধুমাত্র তাঁরই ইবাদত করার জন্য।

 “আর জিন ও মানুষকে কেবল এজন্যই সৃষ্টি করেছি যে তারা আমার ইবাদাত করবে।” [আল কুরআন ৫১:৫৬]

prayer-inside-mosqueএকজন মুসলিম হিসেবে আমরা অবগত নামাজ আমাদের ধর্মের একটি মূল স্তম্ভ। তাই যদি হয়, আমরা প্রতিদিন কী করছি? আমরা কি আমাদের সৃষ্টিকর্তার হক আদায় করছি? আমরা কি আমাদের সময়ের যথাযথ ব্যবহার করছি? আমাদের জীবন কোন উদ্দেশ্য চালিত? আপনি কি চিন্তা করেছেন আপনি সন্তুষ্ট হবেন কিনা যখন আপনি রাস্তার শেষে গিয়ে পোঁছবেন? আপনি কি আপনার জীবনটাকে নিয়ে অন্যভাবে ভাববেন যখন আপনি জানবেন আপনার খুব কম সময় বাকী রয়েছে?

সময় আমাদের জন্য একটি মূল্যবান সম্পদ, আর এই জিনিসটার সঠিক ব্যবহার করাটাই হচ্ছে একজন বিচক্ষণ ব্যক্তির কাজ। তাই আল্লাহ্‌ (সুবহানাহু ওয়া তায়ালা) সময়ের শপথ নিয়েছেন কুরআনে (সূরা আল্-আসর)। রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) নামাযের প্রতি বিশেষভাবে যত্নবান ছিলেন। যুদ্ধ কি শান্তি, সুস্থ কি অসুস্থ  সকল অবস্থায়, এমনকি মৃত্যুর পূর্বে কঠিন অসুস্থ অবস্থায়ও তিনি নামায আদায়ে অবহেলা করেননি  বিন্দুমাত্র । রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর  সাহাবীগণ, ও পরবর্তীতে তাবেয়ীন এবং তাদের অনুসারীরা নামাযের প্রতি ছিলেন বর্ণনাতীতভাবে একনিষ্ঠ ।

তবে সাম্প্রতিক পরিস্থিতি  রীতিমতো ঘাবড়ে দেবার মতো। রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) আমাদেরকে সময় এবং তার সাথে এমন আরও অনেক কিছু আছে যা ক্ষণস্থায়ী, তা যথাযথভাবে ব্যবহার করার তাগিদ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন:

“পাঁচটি জিনিসের আগে পাঁচটি জিনিসের অগ্রাধিকার দাও। জীবিত অবস্থাকে মৃত্যুর আগে, সুস্বাস্থ্যকে অসুস্থতার আগে, অলস সময় ব্যস্ত হয়ে উঠার আগে, যৌবন কাল বার্ধক্য আসার আগে, ধনসম্পদ দরিদ্র হওয়ার আগে” [আল-জামি]

সব শেষে একটি উদাহরণ দেই। আপনার অফিসের টেবিল থেকে যদি কিছু পড়ে যায় আর আপনার পাশের সহকর্মী যদি তা তুলে দেন, আপনি তাকে কী বলবেন? আপনি বলবেন “ধন্যবাদ।” কেন? কারণ কেউ যখন আমাদের সাহায্য করে তখন তাকে ধন্যবাদ জানানো সৌজন্যের একটি অংশ। আল্লাহ্‌ (সুবহানাহু ওয়া তায়ালা) সব সময় আছেন আমাদের সাহায্য করার জন্য। তিনি আমাদের সৃষ্টি করেছেন, আমাদের চোখ দিয়েছেন দেখার জন্য, শ্রবণ শক্তি দিয়েছেন, ঘ্রানশক্তি দিয়েছেন, স্বাদ গ্রহন করার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন, হাত-পা এবং আরও অনেক কিছু দিয়েছেন যা বলে শেষ করা যাবেনা। তাই, আমাদের কি উচিৎ হবে না সব সময় আল্লাহ তা’লার ধন্যবাদ জ্ঞাপন করার মাধ্যমে তার স্মরণ করা? আর নামায ছাড়া ভাল কী হতে পারে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করার জন্য?

আল্লাহ্‌ (সুবহানাহু ওয়া তায়ালা)-র কাছে এই দুআ করি, তিনি যেন আমাদের অন্তরে জুম’আর নামাযের পাশাপাশি পাঁচ ওয়াক্ত নামায যথাযথ ভাবে আদায় করার অনুপ্রেরনাও প্রদান করেন। ইবরাহীম (আলাইহিস সালাম) দুআ করেছেন:

“হে আমার রব, আমাকে সালাত কায়েমকারী বানান এবং আমার বংশধরদের মধ্য থেকেও, হে আমাদের রব, আর আমার দুআ কবুল করুন।” [আল কুরআন ১৪:৪০]

Advertisements

2 thoughts on “জুম’আর নামায হতে পারে আমাদের পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের অনুপ্রেরণা

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this:
search previous next tag category expand menu location phone mail time cart zoom edit close