আপনি কি ‘অটো পাইলট মোডে’ সালাত আদায় করেন?

আমরা যখন প্রথম কোনো কাজ শিখি তখন এর প্রতিটা ধাপের ব্যাপারে অত্যন্ত সচেতন থাকি। যেমন সাইকেল চালানোর কথাই ধরুন। প্রথম যখন শিখেছিলাম, তখন প্রতিবার প্যাডেলে চাপ দেওয়ার আগে ভাবতে হয়েছে। ডানে বামে একটু কাত হলেই সতর্ক হতে হয়েছে যাতে পড়ে না যাই। কিন্তু ধীরে ধীরে এটা আমাদের অভ্যাসে পরিণত হয়ে গেছে। কোনো কাজ যখন অভ্যাসে পরিণত হয়ে যায় তখন কাজটা এমনি এমনিই করে ফেলি আমরা। সচেতন কোনো চিন্তার প্রয়োজন পড়ে না।

সিঁড়িতে ওঠা-নামার ব্যাপারটাও এমনি। একবার ভেবে দেখুন সিঁড়িতে ওঠা-নামা করতে, প্রতি ধাপে উঠতে নামতে আমাদের যদি ভাবতে হতো তাহলে কী হ্যাপাটাই না পোহাতে হতো। এ ব্যাপারটাকে অনেকটা অটো পাইলট মোডের সঙ্গে তুলনা করা যায়।

Photo credit: pixabay[dot]com/en/dandelion-flowers-summer-plant-114397/
Photo credit: pixabay[dot]com/en/dandelion-flowers-summer-plant-114397/
সালাত বা নামাজের ব্যাপারটাও আমাদের অনেকের কাছেই অভ্যাসগত হয়ে গেছে। আমরা সালাত আদায় করি অটো পাইলট মোডে। গৎবাঁধা কিছু রীতি ও শারীরিক কসরতের মধ্য দিয়ে আমরা, আমি সালাত আদায় করি। ভাবি না কী পড়ছি, কী করছি। আমাদের সালাতে এজন্য প্রাণ খুঁজে পাওয়া যায় না। নম্রতা পাওয়া যায় না। আমরা উপলব্ধি করি না কার সামনে দাঁড়িয়েছি, কার সামনে মাথা নত করছি, সিজদাহ করছি। এ যেন পানির স্রোতে ভেসে চলা শুকনো পাতার মতো– যে জানে না কোথায় তার গন্তব্য; নিরন্তর শুধুই বয়ে চলা।

সমস্যাটা জটিল। কারণ ইবাদাতে বা আল্লাহর উপাসনায় ইহসান তথা উৎকর্ষ অর্জনের জন্য এমনভাবে ইবাদাত করা চাই, যেন আমরা আল্লাহকে দেখছি; তবে আমরা যদিও আল্লাহকে দেখি না, তাই এটা উপলব্ধি করা যে, আল্লাহ আমাদের দেখছেন।

প্রথমত উপরের উপলব্ধিটা মনে জাগিয়ে রেখে সালাতে অটো পাইলট অবস্থা থেকে আমরা রেহাই পেতে পারি। এছাড়া আরও যা করতে পারি:

১। সালাতে আমরা যেসব দু’আ পড়ি সেগুলোর অর্থ জানা।
২। নিয়মিত যে সূরাগুলো পড়ি সেগুলোর অর্থ ও তাফসীর সম্পর্কে জানা।

তাফসীর জানার উপকারিতা হচ্ছে, এটা আপনার মনে একটা দৃশ্যকল্প তৈরি করবে। ফলে সালাতে যখন আপনি সেই সূরাগুলো পড়বেন বা শুনবেন তখন আপনার মনের পর্দায় কাহিনিগুলোর চিত্র ফুটে উঠবে। অন্য কিছু ভাবার আর সময় পাবেন না তখন। এভাবে আপনি শুধু শারীরিকভাবেই নয়, মানসিকভাবেও উপস্থিত থাকবেন সালাতে। আপনার সালাত হবে অর্থবহ; নেহাৎ কোনো শরীরচর্চা নয়।

কাজেই আসুন চেষ্টা করি সালাতের মতো গুরুত্বপূর্ণ একটা জিনিসকে অটো পাইলট মোডে না রেখে একে জীবনে বাস্তবায়িত করার। পূর্বসূরি বিদ্বানদের মতো মশগুল হয়ে যাই সালাতে।

পুনশ্চ: সালাতকে অটো পাইলট মোড থেকে বের করার জন্য আপনাদের কাছে যদি কোনো আইডিয়া থাকে তাহলে শেয়ার করতে পারেন নিচে মন্তব্যের মাধ্যমে।

সূত্র: https://www.facebook.com/masud.shorif/posts/10152694958781332

Advertisements

3 thoughts on “আপনি কি ‘অটো পাইলট মোডে’ সালাত আদায় করেন?

  1. নতুন নতুন সুরা মুখস্ত করা, এবং সেগুলোর অর্থবুঝে সলাতে প্র্যাকটিস করা। কারণ একই সুরা বার বার পড়তে পড়তে গিয়ে দেখা যায় সেটা বুঝে ওঠার আগেই মুখের আওড়ানো শেষ।

  2. আমার জন্য যেটা কাজ করে সেটা হলো: আলহামদুলিল্লাহ বলার সময় চিন্তা করা আল্লাহ আমাকে আজকে কি কি অনুগ্রহ করেছেন এবং সে জন্য মন থেকে শুকরিয়া আদায় করা। তারপর ইআকানাস্তাইন বলার সময় চিন্তা করা আমি আল্লাহর কি কি পরীক্ষায় ফেইল করেছি বা আটকে আছি কোনো কাজে এবং সেইসব কাজে আল্লাহর হেল্প চাওয়া কেননা আমরা তো নিজের চেষ্টায় কিসুই করতে পারিনা যদিনা আল্লাহ অনুগ্রহ না করেন। … আমি জানিনা এভাবে চিন্তা করা ঠিক কিনা নামাজের মধ্যে — আমি তো আলেম নই, কিন্তু এই সিস্টেম আমাকে মনোযোগ বাড়াতে অনেক কাজে দেয়।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this:
search previous next tag category expand menu location phone mail time cart zoom edit close