সালাফদের প্রকৃত অনুসারী কারা? (অনুবাদ)

ড. ইয়াসির কাযী-র একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস আপডেট থেকে অনুদিত। পাদটীকাগুলো আমার নিজের।   

Photo credit: pixabay[dot]com/en/sunrise-morning-mist-fog-back-light-503924/
Photo credit: pixabay[dot]com/en/sunrise-morning-mist-fog-back-light-503924/
নবী-রাসুলরা ছিলেন সবচেয়ে মজবুত ঈমানের অধিকারী। তাঁদের পরেই সাহাবীদের স্থান। তাই, সাহাবীরাও অনুসরণ ও অনুকরণের যোগ্য। সেইসাথে, সৎকর্মশীল সালাফদের পদাঙ্ক অনুসরণ করাও আমাদের কর্তব্য। ধর্মীয় বিষয়ে সাহাবী ও সালাফরা আমাদের অন্যতম আদর্শ। সুন্নি মুসলিমরা সবাই তাঁদের এই উচ্চ মর্যাদাকে এক বাক্যে স্বীকার করেন।

সৎকর্মশীল সালাফরা অনেক আগেই এই দুনিয়া ছেড়ে চলে গেছেন। তাঁদের পরবর্তী প্রজন্মের অনেকেই দাবী করেন যে তারা তাঁদের মহান পদাঙ্ক অনুসরণ করছেন। পরবর্তী প্রজন্মের এই লোকদের মধ্যে কেউ কেউ আবার মানুষের ধার্মিকতা পরিমাপ করার জন্য কিছু মাপকাঠি দাঁড় করিয়েছেন। সালাফদের অনুসৃত পথকে এই নব উদ্ভাবিত মাপকাঠির সাথে গুলিয়ে ফেলাটা মস্ত বড় ভুল হবে। ইসলামী জ্ঞানের যে শাখাগুলো আছে তা ইসলামের প্রথম কয়েক শতাব্দীতে ধীরে ধীরে বিবর্ধিত হয়েছে। আকিদা শাস্ত্রও এর ব্যতিক্রম নয়। ইসলামকে ভালো করে বোঝার ক্ষেত্রে এই শাস্ত্রসমূহ সহায়ক ভূমিকা পালন করে। কিন্তু, এই শাস্ত্রসমূহকে কেবল ঠোটস্ত করার নামই কি ধার্মিকতা? দুঃখজনকভাবে, আজকাল কারও কারও কাছে এই শাস্ত্রসমূহই ধার্মিকতার অপর নাম হয়ে দাঁড়িয়েছে।

উদাহরণস্বরূপ, ধরা যাক, কোনো সাহাবীর সাথে আপনার দেখা হয়ে গেল। আপনি তাঁকে জিজ্ঞেস করলেন, “বলুন তো দেখি, তাওহীদ কত প্রকার?” “তাওহীদ হলো তিন প্রকার …” – খুব সম্ভবত, তিনি এভাবে জবাব দেবেন না। অথবা, কালিমা ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’-এর সাতটি শর্ত কী তাও হয়ত তিনি আমাদের মতো গড়গড় করে বলতে পারবেন না। ভাগ্যের পূর্বনির্ধারণের সাথে সংশ্লিষ্ট চারটি পয়েন্টও হয়ত তিনি আমাদের মতো গুছিয়ে বলতে পারবেন না। এই খুঁটিনাটি বিষয়গুলো আজকের মতো এভাবে এসেছে অনেক পরে। মানুষকে ইসলাম শেখানোর সুবিধার্থেই বিষয়গুলো এভাবে পয়েন্ট আকারে সাজানো হয়েছে। সাহাবীরা হয়ত বিষয়গুলো পয়েন্ট আকারে এভাবে জানতেনই না। কিন্তু, এতে করে তাঁদের ঈমানে কোনো কমতি এসেছে কি? ঈমান ও তাওহীদকে তাঁরা যেভাবে আত্মস্থ করতে পেরেছিলেন আমরা কেউই তার ধারেকাছেও নেই। ভাগ্যের পূর্বনির্ধারণ কী তা আমাদের চাইতে তাঁরা অনেক বেশি ও গভীরভাবেই বুঝতেন।

অতএব, প্রশ্ন হলো, সালাফদের প্রকৃত অনুসারী কারা? যারা আকিদার এই বিষয়গুলো পয়েন্ট আকারে ঠোটস্ত করেছে তারা? যদিও তারা দাম্ভিক প্রকৃতির হয়, তবুও? যদিও তারা অন্য মুসলিমদের খাটো চোখে দেখে, তবুও? যদিও তাদের মধ্যে আধ্যাত্মিক উৎকর্ষতার কোনো বালাই নেই, তবুও? নাকি, যারা আল্লাহকে মন থেকে ভালোবাসে, যাদের অন্তরে রাসুলুল্লাহ (ﷺ)-এর পদাঙ্ক অনুসরণ করার বাসনা সুতীব্র, তারাই সালাফদের প্রকৃত অনুসারী? বইয়ের পাতায় লিপিবদ্ধ আকিদার খুঁটিনাটি জ্ঞান হয়ত তাদের জানা নেই। তাতে তেমন কীই বা যায় আসে!

মানুষকে আল্লাহর নৈকট্য অর্জনে সাহায্য করতেই তো আকিদার খুঁটিনাটি এই বিষয়গুলো বইয়ের পাতায় লিপিবদ্ধ করা হয়েছিল। এগুলো তো মানুষেরই গবেষণার ফল। দুঃখজনকভাবে, আজকাল অনেকেই এই পুথিগত বিদ্যাকে ব্যবহার করছেন মুসলিম উম্মাহর মধ্যে বিভক্তি, বিরোধ ও অনৈক্য সৃষ্টি করতে। এসব পুথিগত বিদ্যার চাইতেও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হলো সালাফরা যে পথে চলেছেন সেই পথে চলা: তাঁদের ইবাদাত, বিনয়, দুনিয়া বিমুখতা, দীর্ঘ তাহাজ্জুদ, অভাবী মানুষের প্রতি তাঁদের বদান্যতা, তাঁদের আদব-কায়দা – এগুলোই হওয়া উচিৎ আমাদের আদর্শ।

বইয়ের পাতায় লেখা কয়েকটি পয়েন্ট মুখস্ত করে খুব সহজেই বলে দেওয়া যায় যে, আপনি সালাফদের অনুসরণ করছেন। আফসোস! সালাফদের আদর্শের প্রকৃত ধারক ও বাহকরা আজ কোথায়?

————————————————–

সালাফ: আক্ষরিকভাবে, পূর্বসূরী। পারিভাষিকভাবে, সাহাবী, তাবেয়ী ও তাবা-তাবেয়ী – ইসলামের প্রথম তিনটি প্রজন্মকে ‘সালাফুস-সালিহীন’ বা ‘সৎকর্মশীল পূর্বসূরী’ বলা হয়। এই তিনটি প্রজন্মের ফযিলত বর্ণনা করতে গিয়ে রাসুলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন, “আমার উম্মতের মধ্যে সর্বোত্তম লোক হচ্ছে আমার যুগের লোকেরা। তারপর তার পরের যুগের লোকেরা, তারপর তার পরের যুগের লোকেরা।” [বুখারি]

আকিদা: ইসলামের ধর্মীয় বিশ্বাসের খুঁটিনাটি দিক নিয়ে আলোচনা করে যে শাস্ত্র

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this:
search previous next tag category expand menu location phone mail time cart zoom edit close