[রামাদান স্পেশাল] আজকের আয়াত #১৩: কৃতজ্ঞ থাকলে আল্লাহর অনুগ্রহ বাড়ে (অনুবাদ)

(স্মরণ করো) যখন তোমাদের প্রভু ঘোষণা করেছিলেন, “যদি তোমরা কৃতজ্ঞ থাকো, তাহলে তোমাদেরকে আরও বাড়িয়ে দেব, কিন্তু যদি অকৃতজ্ঞ হও তাহলে (মনে রাখবে) আমার শাস্তি অবশ্যই কঠোর।” (সূরাহ ইবরাহিম, ১৪:০৭)

গতকাল আমরা দেখেছিলাম নাবি ইউসুফ (আ) কীভাবে দাওয়াহ দিয়েছিলেন। তাঁর দাওয়াহর মূল লক্ষ্যবস্তু ছিল আল্লাহর ‘ইবাদাতের কারণ হিসেবে কৃতজ্ঞতা। আজকে আমরা দেখব নাবি মূসা (আ) কীভাবে দাওয়াহ দিয়েছিলেন। এখানেও আমরা কৃতজ্ঞতার ব্যাপারটি দেখতে পাচ্ছি। আল্লাহর অনুগ্রহের কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে এমন ধারাবাহিক কিছু আয়াতের অংশ এই আয়াতটি। এই আয়াতের মাধ্যমে তাদের মনে করিয়ে দেওয়া হচ্ছিল যে, আল্লাহর অনুগ্রহের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকা আল্লাহর সাহায্য আসার অন্যতম লক্ষণ।

বর্তমান সময়ে আমরা দেখি, মানুষের কাছে যা আছে তা নিয়ে তারা সন্তুষ্ট নয়। তাদের আরও চাই, আরও ভালো জিনিস চাই। আমরা মনে করি অভিযোগ করলেই বুঝি ভালো জিনিস পাওয়া যাবে। কিন্তু এই আয়াতে তার বিপরীত চিত্রই দেখছি আমরা। বর্তমানে আমাদের কাছে যা আছে তার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকলেই বরং আল্লাহ তাঁর প্রাচুর্য আরও বাড়িয়ে দেবেন। উল্টোদিকে অকৃতজ্ঞ হলে আল্লাহর তাঁর অনুগ্রহ কমিয়ে দেবেন।

Photo credit: moppet65535, via flickr[dot]com/photos/9880707@N02/3311300060

Photo credit: moppet65535, via flickr[dot]com/photos/9880707@N02/3311300060

জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই আমাদের কাছে যা আছে তার জন্য আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞ থাকা উচিত। যেমন: আমাদের পরিবার, সম্পদ, চাকুরি, স্বাস্থ্য, ঈমান ইত্যাদি। এগুলোর জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশের সঠিক অভিব্যক্তি হলো যথাযথভাবে আল্লাহর ‘ইবাদাত করা। অনুগ্রহগুলোকে ভালো কাজে ব্যবহার করা। কী আছে আর কী নেই, তা নিয়ে অভিযোগ না করা। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই আমরা যেন আরও উন্নতি করতে পারি, সেজন্য অনবরত চেষ্টা চালানো উচিত। বিশেষ করে আমাদের ঈমান বাড়ানোর জন্য। আর সেটা শুরু হওয়া উচিত ইতিমধ্যেই যা আছে তার উপর ভিত্তি করে। আমরা যদি আমাদের বর্তমান অনুগ্রহগুলো উপলব্ধি করতে পারি, তাহলে আমরা বুঝব যে, যতক্ষণ আমরা আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞ থাকব, ততক্ষণ সেই অনুগ্রহ আরও বৃদ্ধি করার ব্যাপারে তিনি আমাদের সাহায্য করবেন।

ইসলামে উন্নতির অন্যতম চাবিকাঠি হচ্ছে কৃতজ্ঞতা। কাজেই কোনো মুসলিমের কখনোই উচিত নয় অকৃতজ্ঞ হওয়া: কি আল্লাহর প্রতি কি মানুষের প্রতি। নাবি (তাঁর উপর বর্ষিত হোক আল্লাহর শান্তি ও আশীর্বাদ) বলেছেন, “যে মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞ নয়, সে আল্লাহর প্রতিও কৃতজ্ঞ নয়।” সুতরাং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ একজন বিশ্বাসী ব্যক্তির অন্যতম চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য। এই আদর্শ সমুন্নত রাখার জন্য আমাদের সংগ্রাম করা চাই। আসুন আত্ম-করুণা ও অভিযোগ করা বাদ দিয়ে আমরা মনোযোগ দিই কৃতজ্ঞতা প্রকাশ ও সমৃদ্ধির দিকে।

মূল লেখক: Ismail Kamdar, Head Tututorial Assistant, Islamic Online University

ইংরেজিতে মূল লেখাটি পড়ুন এখানে: http://abumuawiyah.com/verse-of-the-day-13-1407-gratitude-leads-to-increase/      

বাংলা অনুবাদটি প্রথম প্রকাশিত হয় এখানে: https://www.facebook.com/masud.shorif/posts/10152904927636332 

Advertisements

One thought on “[রামাদান স্পেশাল] আজকের আয়াত #১৩: কৃতজ্ঞ থাকলে আল্লাহর অনুগ্রহ বাড়ে (অনুবাদ)

  1. পিংব্যাকঃ অহেতুক তুলনা করবেন না (অনুবাদ) | আমার স্পন্দন

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s