এটা কি কোনো বিপদ সঙ্কেত? এটা কি কোনো কিছুর পূর্বাভাস?

কুরআনে কারিমের একাধিক স্থানে একটি শব্দ আছে, তা হলো “মুতরাফুন”। অনেক অভিধানেই যার অর্থ করা হয়েছে the pampered one। অর্থাৎ, আদরে আহ্লাদে বিত্ত-বৈভবের ভেতর যারা লালিত-পালিত হয়েছে, দুঃখ-দুর্দশা যাদের কখনও স্পর্শ করেনি, জন্মের পর থেকেই যারা লাক্সারিয়স লাইফ লিড করে আসছে, এ ধরণের মানুষদেরকে বলা হয় “মুতরাফুন”।

আল্লাহ তাআলার নি’মাহ ও অনুগ্রহ অন্য সবার তুলনায় তারা বেশি ভোগ করে, অথচ তারাই আল্লাহ তাআলার অবাধ্য হয় সবচেয়ে বেশি। সুরা ওয়াকিয়ার বর্ণনা অনুযায়ী, এ সমস্ত মানুষেরা একটি পর্যায়ে এতটাই অকৃতজ্ঞ ও অবাধ্য হয়ে ওঠে যে, অন্যায় করে আফসোস বা অনুশোচনা হওয়া তো দূরের কথা, উল্টো নিজের কাজের পক্ষে সাফাই গাইতে থাকে। একই অন্যায় বারবার করে, সদম্ভে সগর্বে।

লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, পিলে চমকে ওঠার মতো আমাদের দেশে সম্প্রতি যে অপরাধগুলো ঘটেছে, তার মূল কর্তারা কিন্তু অধিকাংশই “মুতরাফুন”। সামান্য কিছু সময় জ্যামে বসে থাকার কারণে বিরক্ত হয়ে যিনি রিকশা চালককে গুলি করে দিয়েছিলেন, তিনি কি ধনী মায়ের আদরের দুলাল নন? দশ বছরের ছোট একটি বাচ্চাকে পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে যারা মেরে ফেললো, তারা কি অর্থশালী নন? মায়ের পেটের বাচ্চা যার গুলিতে গুলিবদ্ধ হলো, সে কি প্রভাবশালীদের একজন নয়?

এতো গেল টুকরো ঘটনা। বিশাল বিশাল অপরাধগুলো? যেগুলোর মধ্যে একজন দুজন নয়, বরং হাজার হাজার মানুষ শামিল হয়ে যায়, এ সমস্ত অপরাধের কর্তারাও কিন্তু সেই “মুতরাফুন”। মদের বারগুলো কারা চালায়? সুদ ঘুষকে কারা হালাল করতে চায়? “মুতরাফুন”রাই তো।

ভেবে দেখার বিষয় হলো, একটি বিশেষ শ্রেণীর লোকেরা এভাবে অধিকাংশ অপরাধের অপরাধী হয়ে যাচ্ছে, এটা কি কোনো বিপদ সঙ্কেত? এটা কি কোনো কিছুর পূর্বাভাস?

Earthquake damage in L'Aquila
Photo credit: Joanna Faure Walker, via flickr[dot]com/photos/uclmaps/10667999425
আসুন দেখি কুরআন কী বলে,

যখন আমি কোনো জনপদকে ধ্বংস করার ইচ্ছা করি তখন আমি সেখানকার মুতরাফুনদের (অবস্থাপন্ন লোকদের)-কে উদ্বুদ্ধ করি, অতঃপর তারা পাপাচারে মেতে উঠে। তখন সে জনগোষ্ঠীর উপর আদেশ অবধারিত হয়ে যায়। অতঃপর আমি তাদেরকে সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করে দেই। – সুরা আল ইসরা, আয়াত ১৬

আল্লাহর আযাবের কোনো পূর্বাভাস নেই। তবে সতর্ক করা হয় বারবার। সেই সতর্ক সঙ্কেতও সব দেখানো হয়ে গিয়েছে। এমন কোনো অপরাধ নেই যা এই নব্বই ভাগ মুসলিমের দেশে হচ্ছে না। তাই এখনো যদি আমরা না থামি, যদি তওবা না করি, অসম্ভব কিছু নয়, নেপালের মতো হঠাৎই চলে আসতে পারে সেই ভয়াবহ মুহূর্ত।

“জনপদের অধিবাসীরা কি এ থেকে নিশ্চিন্ত হয়ে গিয়েছে যে, আমার আযাব তাদের উপর রাতের বেলায় এসে পড়বে অথচ তখন তারা থাকবে ঘুমে অচেতন।
অথবা জনপদের অধিবাসীরা কি এ থেকে চিন্তামুক্ত যে, তাদের উপর আমার আযাব দিনের বেলাতে এসে পড়বে অথচ তারা তখন থাকবে খেলাধুলায় মত্ত।” – সুরা আ’রাফ, আয়াত ৯৭-৯৮

সূত্র: https://www.facebook.com/rksaninbd/posts/160942444263738

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this:
search previous next tag category expand menu location phone mail time cart zoom edit close