ফিতনার সময়ে করণীয়

1_1

29_11

29_2

29_3

আলিফ লাম মীম। মানুষ কি মনে করে, ‘আমরা ঈমান এনেছি’ বললেই ওদের ফিতনা (পরীক্ষা)  ছাড়াই ছেড়ে দেওয়া হবে? ওদের পূর্ববর্তীদেরকেও পরীক্ষা করা হয়েছিলো। অবশ্যই আল্লাহ্‌ স্পষ্ট করে দেবেন কারা সত্যবাদী ও কারা মিথ্যাবাদী। – (সূরা আনকাবুত ২৯:১-৩)

নিচের ঘটনাগুলোর কথা ভেবে দেখুন:

  • হঠাৎ করেই বিশাল এক বিল্ডিং ধ্বসে পড়েছে আপনার শহরে। ধ্বংসস্তুপের নিচে চাপা পড়া মুখগুলোর ছবি দেখে আপনি ঘুমাতে পারছেন না। মনের ভিতরের ছটফটানিটা যেন কিছুতেই থামছে না। নিজেকে বারবার প্রশ্ন করছেন – এদের জন্য আমি কী করতে পারি?
  • দেশজুড়ে ‘অমুক’ ইস্যু নিয়ে মাঠ গরম হয়ে গেছে। আপনার বন্ধুরা, পাড়ার বড় ভাইয়েরা দলে দলে যোগ দিচ্ছেন ‘তমুক চত্বরে’। আপনিও ভাবছেন – আমিও ওদের সাথে যাবো নাকি? আবার ভাবছেন – এদের সাথে গেলে তো আমার অন্য সার্কেলের বন্ধুরা আমাকে খারাপ বলবে। কি যে করি, কি যে করি, ফেইসবুকে একটা রক্তগরম স্ট্যাটাস দিয়ে দিবো নাকি? কিছুতেই আপনি বুঝে উঠতে পারছেন না কি করবেন!
  • শুরু হয়েছে বিশ্বকাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতা। গত কয়েক বছরে ক্রিকেটে  আপনার দেশ ভালো খেলায় এটাই এখন জাতীয় সিম্বল। আড্ডায়, টিভিতে, সংবাদপত্রে, ফেইসবুকে – যেখানেই যান শুধু ক্রিকেট নিয়ে আলোচনা। ক্রিকেটের নেশায় বুঁদ হয়ে আছে পুরো জাতি। আর এর মধ্যে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলাটা পড়েছে কিনা ঠিক জুম’আর সময়! খেলা দেখলে জুম’আ মিস, জুম’আ পড়তে গেলে খেলা দেখা মিস। বড় মুসিবতে পড়া গেলো! কি যে করি!
  • এসেছে রামাদান মাস। আপনি ভাবলেন রামাদান উপলক্ষে ফেসবুকের ইসলামী লেখাগুলি একটু পড়ে দেখি। পড়তে যেয়ে দেখলেন – আপনার “ইসলামী মাইন্ডেড” বন্ধুরা যতটা রামাদানের করনীয়-বর্জনীয় আর ফজীলত সম্পর্কে লিখছে, তার চেয়ে ঢের বেশী মারামারি করছে তারাবীর নামাজ ৮ রাকআত না ২০ রাকআত নিয়ে। এই পক্ষ ইট মারে তো অন্য পক্ষ হাতবোমা মারে। এই লেখাগুলি পড়তে যা মজা! কিসের কি রামাদানের ফজিলত, আপনি মজে গেলেন মাজহাবী বিতর্কে।

উপরে যে ঘটনাগুলো বলা হলো তার সবগুলিতে একটা ব্যাপার কমন – এগুলো সবই “ফিতনা”-র উদাহরণ। ফিতনা (trials and tribulations) মানব ইতিহাসের অবিচ্ছেদ্য অংশ। বিশেষত: আমরা এখন যে সময়ে বাস করছি তাতে পারিবারিক, সামাজিক এবং রাষ্ট্রীয় ফিতনা প্রায়শ:ই চরম আকার ধারণ করে। দেশে বলুন, দেশের বাইরে বলুন সর্বত্র মানুষের মধ্যে ব্যাপক মতপার্থক্য যা হঠাৎ করেই রূপ নেয় ঝগড়ায়, ঘৃণায়, খুনাখুনিতে।  ফিতনা যখন চরম আকার ধারণ করে তখন ভালো-মন্দের পার্থক্য করা কঠিন হয়ে পড়ে, আর এই সময়ে অনেকেই কনফিউজড হয়ে পড়ে যে, আমার কী করণীয়? ফিতনার সময়ে একজন প্রকৃত মুসলিমের দায়িত্ব কী  – এই সমন্ধে কোরআন আর হাদিস কী বলে – এই লেখায় আমি তার একটা জেনারেল গাইডলাইন খোঁজার চেষ্টা করেছি।

লেখাটি পড়ার সময় অবশ্যই মনে রাখতে হবে: এটা শুধুই একটা জেনারেল গাইডলাইন। কোনো সমাজ বা দেশ ফিতনাগ্রস্ত হলে সেখানকার মুসলিমদের স্পেসিফিক দায়িত্ব কী হবে – তা শুধু সেই সমাজের/দেশের যোগ্যতাসম্পন্ন ইসলামি স্কলারেরাই বলতে পারবেন।

Storm clouds

Photo credit: -Chad Johnson, via flickr[dot]com/photos/johnson7/1460568819/

ফিতনা কাকে বলে?

ফিতনা শব্দের অর্থ হলো ‘পরিশুদ্ধ করার উদ্দেশ্যে পরীক্ষা করা’ (to examine with the intent of purifying)। এই পরীক্ষা আমাদের প্রিয় কোনও কিছু (যেমন অর্থ, সম্পদ, ক্ষমতা, পুরুষের জন্য নারী / নারীর জন্য পুরুষ) দিয়ে হতে পারে, আবার হতে পারে আমাদের অপছন্দনীয় কিছু দিয়ে (যেমন অকস্মাৎ বিপদ, গৃহযুদ্ধ, বিশৃংখলা, অত্যাচারী শাসক ইত্যাদি)। আল্লাহ্‌ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা ফিতনার মাধ্যমে তাঁর কৃতজ্ঞ বান্দাদেরকে অকৃতজ্ঞ মানুষ থেকে পৃথক করেন।

সাধারণ মানুষের ধারণা ফিতনা মানেই বুঝি খারাপ কিছু। ধারণাটা ঠিক না। আল্লাহ্‌ তা’লা কুরআনে সন্তান ও সম্পদকে ফিতনা বলেছেন, অথচ আমরা এগুলোকে ভালো কিছু বলেই জানি। কাজেই, কোনো কিছু ফিতনা কি না তা নির্ধারণ করা অনেক সময় কঠিন হয়ে পড়ে।  চলমান কোনো ঘটনা ফিতনা কি না তা ভালো বলতে পারবেন ওই সময়ের ও ওই এলাকার ইসলামী স্কলারেরা। কিন্তু, যে কোনও ফিতনারই দু’টি কমন বৈশিষ্ট্য থাকে [১,১০]। এগুলো হলো –

১) ফিতনা প্রচন্ড আকর্ষণের সৃষ্টি করে: যে কোনো ফিতনাই মানুষকে চুম্বকের মতো টানে। যে লোক কোনোদিন খবরের কাগজ পড়ে না, ফিতনার সময় সেও সবাইকে জিজ্ঞেস করে – আচ্ছা এর পর কী হয়েছিলো? বর্তমান যুগে ফিতনা চেনার একটা সহজ উপায় হলো ফেইসবুক। যখন যে ফিতনা শুরু হয়, ফেইসবুকের হোম পেইজ আর প্রোফাইল পিকচার ভরে যায় ওই ফিতনায়।

) ফিতনা মানুষকে আল্লাহর ইবাদত থেকে দূরে সরিয়ে দেয়: কিছু কিছু ফিতনা আছে যেগুলোর উপস্থিতিতে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও প্রতিকূল পরিবেশের কারণে মানুষের পক্ষে আল্লাহর ইবাদত করা কঠিন হয়ে পড়ে (যেমন – যুদ্ধ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ )। অন্যদিকে কিছু কিছু ফিতনা আছে (যেমন – বিশ্বকাপ খেলা) যেগুলোতে মানুষ এতটাই আচ্ছন্ন হয়ে যায় যে, সে ভুলে যায় তার উপর তার প্রতিপালকের দেয়া দায়িত্ব। নামাজী ব্যক্তি ফিতনার আকর্ষণে সময় মতো নামাজ পড়তে পারে না, মা-বাবা ও পরিবারের উপর দায়িত্বের কথা ভুলে গিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে ফিতনার আপডেট জানার জন্য। ফিতনার সময় গিবত বেড়ে যায়, বেড়ে যায় মিথ্যাবাদীতা, চোগলখুরী আর কাঁদা ছোড়াছুড়ি।

ফিতনার জবাবে করণীয় কাজগুলোকে আমি দুইভাগে ভাগ করেছি: আত্মিক (spiritual) ও পার্থিব (worldly)। আত্মিক কাজগুলো পার্থিব কাজগুলোর ভিত্তি, যদিও দুই ভাগের কাজগুলোই গুরুত্বপূর্ন।

 

ফিতনার জবাবে আত্মিক / Spiritual যে কাজগুলো করতে হবে: 

১ – বিপদগ্রস্ত মানুষের জন্য কষ্ট অনুভব করা: ফিতনা তার সাথে করে নিয়ে আসে বিপদ আর কষ্ট, সর্বনিম্ন আমরা যা করতে পারি তা হলো ফিতনায় পড়া মানুষের জন্য কষ্ট অনুভব করা। ফিতনায় পড়া মানুষগুলো যদি মুসলিম হয়, তাহলে তাদের জন্য কষ্ট অনুভব করা আমাদের ঈমানের অংশ। যখন বাংলাদেশ, ফিলিস্তিন, গুয়ানতানামো, সিরিয়া, মিসর, ইরাক, আফগানিস্তান, ভারত, পাকিস্তান বা বার্মার মুসলিমরা ফিতনায় পড়ে, তখন যদি আমরা বিন্দুমাত্র কষ্ট অনুভব না করে নিজের স্বাভাবিক জীবনকার্য চালিয়ে যেতে পারি, তাহলে বুঝে নিতে হবে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে প্রশ্ন করার সময় এসেছে – আমরা কি আসলেই মুসলিম?

আল্লাহ বলেন: “সকল ঈমানদারেরা তো পরষ্পর ভাই ভাই।” (সূরা হুজুরাত ৪৯:১০ আয়াতাংশ)

রাসূলুল্লাহ(সা) বলেন: “তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না যদি ঈমানদার না হও, তোমরা ঈমানদার হতে পারবে না যদি একজন আরেকজনকে ভালো না বাসো।” (মুসলিম)

রাসূলুল্লাহ(সা) বলেন: “তুমি ততক্ষণ পর্যন্ত ঈমানদার হতে পারবে না, যতক্ষণ না তোমার ভাইয়ের জন্য তা-ই ভালোবাসো যা তুমি তোমার নিজের জন্য ভালোবাসো।” (বুখারী)

২ –  দু’আ করা: বর্তমান সময়ে দু’আ করাকে আমরা খুব তুচ্ছ একটা ব্যাপারে মনে করি। আমরা মনে করি, ধূর! দু’আ করে কী হবে? আসলে এর মাধ্যমে আমরা আমাদের ঈমানী দৈন্যতাই প্রকাশ করি। আমরা যে আল্লাহর সর্বময় ক্ষমতায় বিশ্বাস করি না তা-ই প্রমাণ করি। অথচ, দু’আ হচ্ছে মু’মিনের অস্ত্র।  একজন মুসলিম বিশ্বাস করে যে আল্লাহ সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী, সবকিছুর নিয়ন্ত্রণ সবসময় শুধু তাঁর কাছেই আছে। তাই একজন মুসলিম বড় বড় ব্যাপার থেকে শুরু করে ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র ব্যাপারেও আল্লাহর কাছে দু’আ করে – একগ্লাস পানি খাওয়ার জন্য হাতটা যেমনি আগে বাড়ায়, তেমনি বিসমিল্লাহ বলে আল্লাহর সর্বময় ক্ষমতাকেও স্বীকার করে। সে ফিতনার আগে দু’আ করে, ফিতনার সময়ে দু’আ করে, ফিতনার পরেও দু’আ করে। আমরা দু’আ করবো ফিতনায় না পড়ার জন্য, আর দু’আ করবো ফিতনার সময় যাতে মনোযোগ না হারিয়ে একাগ্রচিত্তে আল্লাহর ইবাদত করতে পারি। আমরা দু’আ করবো অত্যাচারীতের জন্য যেন সে অত্যাচার থেকে মুক্তি পায়, এমনকি দু’আ করবো অত্যাচারীর জন্য যাতে সে অত্যাচারের পথ ছেড়ে দিয়ে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

আল্লাহ বলেন: “তোমার রব বলেন: আমাকে ডাকো, আমি উত্তর দিবো।” – (সূরা গাফির ৪০:৬০ আয়াতাংশ)

আল্লাহ বলেন: “আমিই মানুষকে সৃষ্টি করেছি এবং আমি জানি তার মন তাকে কী কুমন্ত্রণা দেয়। আমি (আমার জ্ঞানের মাধ্যমে) তার গ্রীবাস্থিত ধমনীর চেয়েও নিকটতর।” – সূরা কফ ৫০:১৬

রাসূলুল্লাহ(সা) বলেন: “তোমরা আল্লাহর কাছে প্রকাশ্য ও গোপন ফিতনা থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করো।” – (মুসলিম)

৩ –  ইসলামের উপর অবিচল থাকা: ফিতনার সময় শয়তান এসে মানুষকে বলে – ‘দেখো, আজ ইসলাম ধর্মের কারণেই পৃথিবীতে এত সমস্যা। ধর্মের কারণেই এত বিভেদ, মানুষে মানুষে এত মারামারি। আর আল্লাহ্‌ যদি সত্যিই থেকে থাকেন তাহলে এখন তিনি মুসলমানদেরকে সাহায্য করছেন না কেন?’ প্রকৃতপক্ষে আল্লাহর সাহায্য আসবেই। কিন্তু তার আগে আল্লাহ্‌ ফিতনার মাধ্যমে মানুষের ঈমান পরীক্ষা করবেন, যেভাবে তিনি অত্যাচারী ফেরাউনের মাধ্যমে বনী ইসরাইলের ঈমান পরীক্ষা করেছিলেন, অত্যাচারী কুরাইশবাসীর মাধ্যমে রাসূলুল্লাহ(সা) আর সাহাবীদের ঈমান পরীক্ষা করেছিলেন। ফিতনার সময় যারা মু’মিন তারা ইসলাম থেকে দূরে সরে যায় না, বরং পরীক্ষা যত কঠিন হতে থাকে ইসলামের রজ্জুকে সে তত শক্ত করে আঁকড়ে ধরে, অন্যদিকে মুনাফিকেরা এই সময় মুসলিমদের থেকে পৃথক হয়ে যেয়ে কাফেরদের সাথে হাত মিলায়।

ফিতনা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য নিচের এই দু’আটি রাসূলুল্লাহ(সা) আমাদের শিখিয়ে গেছেন:

dua

উচ্চারণ: ইয়া মুক্বাল্লিবাল ক্বুলুব সাব্বিত ক্বালবি ‘আলা দিইনিক

অর্থ: হে হৃদয় পরিবর্তনকারী, আমাদের হৃদয়কে তোমার দ্বীনের উপর সুদৃঢ় করে দাও। – (আহমদ)

৪ –  ইবাদত বৃদ্ধি করা: ফিতনার সময় মানুষের মন বিক্ষিপ্ত থাকে, টেনশন করে, এটা-সেটা চিন্তা করে সে সময় পার করে দেয়। মনের এই অস্থিরতা থেকে মুক্তি পাওয়ার ওষুধ হলো আল্লাহর ইবাদত বৃদ্ধি করা – ধীরে ধীরে সময় নিয়ে নামাজ পড়া, নফল রোজা রাখা, বুঝে বুঝে কোরআন পড়া, স্কলারদের লেকচার শুনা, কোরআনের অর্থ নিয়ে চিন্তা করা।

রাসূলুল্লাহ(সা) বলেন: “ফিতনার সময় ইবাদত করা, হিজরত করে আমার কাছে আসার সমতুল্য।” (মুসলিম)

সাহাবীদের মধ্যে অন্যতম সর্বোচ্চ মর্যাদাশীল সাহাবীরা হলেন যারা রাসূলুল্লাহ(সা)-এর সাথে হিজরত করেছিলেন। আপনার মনে আফসোস আপনি কেন সাহাবী হয়ে জন্মালেন না? সাহাবাদের সমান নেকী অর্জনের সুযোগ আল্লাহ্‌ আপনাকে দিয়েছেন – ফিতনার সময় ধৈর্য্য ধরে আল্লাহর ইবাদত করুন, ইবাদত বৃদ্ধি করুন।

রাসূলুল্লাহ (সা) বলেন: “তোমরা অন্ধকার রাতের টুকরোগুলোর মতো (যা ক্রমশই গভীর হতে থাকে) ফিতনা আসার পূর্বে নেকীর কাজ দ্রুত করে ফেল। সেই সময়ে মানুষ সকালে মু’মিন হয়ে ঘুম থেকে উঠবে এবং রাত শুরু করবে কাফের হয়ে, অথবা সে রাত শুরু করবে মু’মিন হয়ে এবং সকালে ঘুম থেকে উঠবে কাফের হয়ে । তখন সে নিজের দ্বীনকে দুনিয়ার সম্পদের বিনিময়ে বিক্রয় করবে।” – (মুসলিম, তিরমিযী, আহমাদ)

৫ – ইসলাম নিয়ে পড়াশুনা করা: মুসলমানদের মধ্যে ইসলামের শিক্ষা যত কম থাকবে তত সহজেই তারা ইসলামের শত্রু এবং বিভ্রান্তিকর বক্তব্য প্রদানকারী ইসলামিষ্ট – এই দুই গ্রুপের লোকদের দ্বারা সহজেই মোটিভেটেড হয়ে যাবে। ফলে, ইসলামী শিক্ষায় স্বল্পশিক্ষিত মুসলমানেরা তখন হয় ইসলামের শত্রুদের পক্ষ নিবে, অথবা বিভ্রান্তিকর ইসলামিষ্টদের কথায় আবেগতাড়িত হয়ে এমন কিছু করে বসবে যার ফলে সমাজে ফিতনা তো কমবেই না, বরং অস্থিতিশীলতা আরো বৃদ্ধি পাবে।

রাসূলুল্লাহ(সা) বলেন: “কিয়ামত যখন কাছে চলে আসবে তখন এমন দিন আসবে যখন (দ্বীনি) জ্ঞান হারিয়ে যাবে, মূর্খতার আবির্ভাব হবে, এবং প্রচুর পরিমাণে মানুষ হত্যা হবে।” (ইবনে মাজাহ, বুখারী, মুসলিম)

লক্ষ্য করুন, রাসূলুল্লাহ(সা) মানুষ হত্যা বেড়ে যাওয়ার সাথে জ্ঞানের অভাবকে কিভাবে রিলেট করেছেন। মানুষ যত বেশী জ্ঞানবিমুখ হবে, ইসলাম ও দুনিয়া সম্বন্ধে যত কম জানবে, তত সহজেই সুবিধাবাদী গোষ্ঠী তাদের ব্রেইনওয়াশ করে ভুল পথে পরিচালিত করতে পারবে। কাজেই, ফিতনা থেকে বেঁচে থাকতে হলে আমাদের মনোযোগী হতে হবে সিরিয়াস ইসলামী জ্ঞান অর্জনের প্রতি, আলেমদের লেকচার শুনতে হবে, সান্নিধ্যে যেতে হবে, প্রচুর বই পড়তে হবে, সাধনা করতে হবে দিনের পর দিন, বছরের পর বছর। আমাদের দেশে যখনই ইসলাম-বিষয়ক কিছু নিয়ে গন্ডগোল বাধে তখনই দেখা যায় কিছু লোক একটা কোরআন শরীফ হাতে নিয়ে বিভিন্ন আয়াতের নিজের ইচ্ছামতো ব্যাখ্যা দেওয়া শুরু করেছে। এদের ইসলাম-বিষয়ক কথাবার্তা থেকে ১০০ হাত দূরে থাকতে হবে। এই জাতীয় লোকরা নিজেরাও বিপথে চলে, আর মানুষকেও বিপথে পরিচালিত করে।

৬ – অন্যদের মাঝে ইসলামী জ্ঞান ছড়িয়ে দেওয়া: শুধু নিজে দ্বীন শিখলেই চলবে না, আমাদের পরিবারের সদস্যদের ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে, আমাদের পরিচিতদের মধ্যে যারা ইসলামী জ্ঞানচর্চা থেকে দূরে সরে গেছে তাদেরকেও ইসলামের আলোর সন্ধান দিতে হবে। কারন, আমরা যদি মানুষকে আল্লাহর পথে না ডাকি, অন্যরা আমাদেরকে শয়তানের দিকে ডাকবে। একজন মুসলিমের জন্য অন্যদের কাছে ইসলামী জ্ঞান তুলে ধরার প্রয়োজনীয়তা বুঝাতে যেয়ে সহীহ বুখারীতে নু’মান ইবনে বশীর (রা:) থেকে বর্ণিত চমৎকার একটা হাদিস আছে।

রাসূলুল্লাহ(সা) বলেন, “কিছু মানুষ একটা জাহাজে উঠেছিলো, যার কেউ ছিলো উপরের তলায়, কেউ ছিলো নিচের তলায়। উপরের তলার লোকদের কাছেই শুধু পানির ব্যবস্থা ছিলো, তাই নিচের লোকদের পানির দরকার পড়লে তাদের উপরের তলায় যাওয়া লাগতো। নিচতলার লোকেরা মনে করলো, আমরা তো বারবার উপরে যেয়ে উপর তলার লোকদেরকে বিরক্ত করছি, কেন না আমরা জাহাজে একটা ফুটো করে ফেলি, তাহলে আমরা নিচে বসেই পানি পাবো আর উপরের তলার মানুষগুলোকেও বিরক্ত করবো না। এখন উপরের তলার মানুষগুলো যদি নিচের মানুষগুলোর ব্যাপারে তোয়াক্কা না করে তাহলে দুই দলই ডুবে মরবে, আর উপরের মানুষগুলো যদি নিচের মানুষগুলোকে বাধা দেয় তো দুই দলই বাচঁবে।”

একইভাবে, যার মধ্যে ইসলামী জ্ঞান নেই সে অন্য মুসলিমের উপকার করতে যেয়ে ক্ষতি করে বসতে পারে। যে ইসলাম সম্বন্ধে জানে না সে শুধু নিজেই পানিতে ডুবে মরে না, নিজের অজান্তেই  আশেপাশের লোকগুলোকেও পানিতে ডুবায়। আর তাই আমাদের নিজেকে ইসলাম শিখলে আর পালন করলেই চলবে না, যার যতটুকু সাধ্য আছে তার সাহায্যে আমাদের পরিচিতদেরকেও ইসলাম সম্বন্ধে জানাতে হবে।

৭ – ধৈর্য্যধারণ করা: ফিতনার সময় আমরা মানসিক চাপের মধ্যে থাকি, ফলে ছোটখাটো ঘটনাতেও নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলি। তাই, এই সময় আমাদের ধীরস্থির থাকতে হবে, ধৈর্য্য ধরতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে যে আল্লাহ বলেছেন, “নিশ্চয়ই কষ্টের সাথেই আছে স্বস্তি” (সূরা ইনশিরাহ ৯৪:৫-৬)।

সা’দ ইবনু আবি ওয়াক্কাস (রা) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ(সা) বলেন: “অনতিবিলম্বেই এমন এক বিপর্যয়ের আত্মপ্রকাশ ঘটবে যখন বসে থাকা ব্যক্তি দাঁড়িয়ে থাকা ব্যক্তির চেয়ে ভালো (নিরাপদ) থাকবে, দাঁড়িয়ে থাকা ব্যক্তি হেঁটে চলা ব্যক্তির চেয়ে ভালো থাকবে, আর হেঁটে চলা ব্যক্তি দৌড়ে চলা ব্যক্তির চেয়ে ভালো থাকবে।” সাদ(রা) জিজ্ঞেস করলেন: আপনি এ ব্যাপারে কি মনে করেন যদি ফিতনাবাজ কোনো লোক আমার ঘরে প্রবেশ করে এবং আমাকে হত্যা করতে উদ্যত হয়? রাসূলুল্লাহ(সা) উত্তর দিলেন: “তুমি আদমের ছেলে (হাবিলের) মতো হয়ে যাও।” [কাবিল যখন হাবিলকে হত্যা করতে উদ্যত হয়েছিলো তখন হাবিল বলেছিলো: ‘আমাকে হত্যা করার জন্য তুমি আমার প্রতি হাত তুললেও তোমাকে হত্যা করার জন্য আমি তোমার প্রতি হাত তুলবো না, আমি তো বিশ্বজগতের রবকে ভয় করি’। (সূরা মায়িদাহ ৫:২৮)] (তিরমিযী)

 

ফিতনার জবাবে পার্থিব / Worldly যে কাজগুলো করতে হবে:   

১ – ফিতনাগ্রস্ত মানুষকে যতদূর সম্ভব সাহায্য করা: অনেক সময় প্রাকৃতিক দুর্যোগ, অকস্মাৎ দুর্ঘটনা, অত্যাচারী শাসক ইত্যাদি কারণে মানুষ ফিতনার কবলে পড়ে। এসময় ফিতনায় পড়া মানুষগুলোকে  সামর্থ্যমতো সাহায্য করা আমাদের দায়িত্ব। এই সাহায্য হতে পারে অর্থ দিয়ে, খাবার দিয়ে, বস্ত্র দিয়ে, আবার এটা পারে ফিতনাগ্রস্ত মানুষের সম্পর্কে (সম্পূর্ণ নিশ্চিত হয়ে) সঠিক তথ্য ফেইসবুক, টুইটার ও বিভিন্ন আলোচনায় তুলে ধরে মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করে।

 আব্দুল্লাহ ইবনে ‘আমর ইবনুল ‘আস হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ(সা) বলেন: “(কেয়ামত যখন কাছে আসবে) তখন একের পর এক ভয়াবহ ফিতনা আসবে, যেটা নতুন আসবে সেটার তুলনায় আগেরটাকে নগণ্য মনে হবে। যখন একটা ফিতনা আসবে তখন ঈমানদার বলবে, এবারই মনে হয় ধ্বংস হয়ে যাবো। কিন্তু এই ফিতনা পার হয়ে যাবে, এরপর নতুন আরেকটা ফিতনা আসবে, আর ঈমানদার বলবে: এবার নিশ্চিত ধ্বংস হয়ে যাবো। সেসময়  যে কেউ জাহান্নামের আগুন থেকে রক্ষা পেতে চায় এবং জান্নাতে প্রবেশ করতে চায়, সে যেন আল্লাহ্ এবং শেষ দিবসের উপর ঈমান রাখে, আর অন্য মানুষের সাথে সেইরকম ব্যবহার করে যেরকম ব্যবহার সে চায় অন্যেরা তার সাথে করুক।“– (মুসলিম)

২ – আইন না ভেঙে অন্যায়ের প্রতিবাদ করা: অন্যায়কে ঘৃণা করা আমাদের ঈমানের অংশ। কিন্তু, তাই বলে অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে যেয়ে এমন কিছু করা যাবে না যাতে সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই সকল আইনসিদ্ধ উপায়ে অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে, প্রতিবাদ করতে হবে, কিন্তু আইন নিজের হাতে তুলে নেয়া যাবে না। আমরা অন্যায়ের প্রতিবাদ জানাবো, অন্যায়ের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিবো, কিন্তু এগুলো করবো শুধুই আইনসিদ্ধ উপায়ে

রাসূলুল্লাহ(সা) বলেন: “যদি তোমাদের মধ্যে কোনো লোক কোনো অন্যায় সংঘটিত হতে দেখে তাহলে সে যেন তার হাত দ্বারা (অর্থাৎ ক্ষমতা প্রয়োগে) তা প্রতিহত করে, যদি এই যোগ্যতা তার না থাকে সে যেন তার মুখ দ্বারা তা প্রতিহত করে। আর এই যোগ্যতাও তার না থাকে তাহলে সে যেন তার অন্তর দ্বারা তা প্রতিহত করে (অর্থাৎ অন্যায়কে ঘৃণা করে) – আর এটা হলো দুর্বলতম ঈমান।” – (মুসলিম, ইবনু মাজাহ, তিরমিযী)

এই হাদিসের ব্যাখায় স্কলারেরা [১১] বলেন: হাত দ্বারা অন্যায় প্রতিহত করা সরকার ও তার প্রশাসনের কাজ। সিভিলিয়ানরা হাত দিয়ে অন্যায় প্রতিরোধ তখনই করতে পারবে যখন সেটা তার আওতায় পড়বে। যেমন, কেউ আপনার বাসায় চুরি করতে ঢুকলো আর আপনি তাকে প্রতিহত করলেন। কিন্তু, অন্যায় প্রতিহত করার মানে এটা নয় যে, সরকারের কোনো কাজ পছন্দ হলো না আর রাস্তায় যেয়ে ভাংচুর বা হরতাল শুরু করে দিলাম। আর মুখ দিয়ে প্রতিবাদ সেই ব্যক্তিই করবে যার ইসলাম সম্বন্ধে এবং ওই ফিতনা সম্বন্ধে জ্ঞান আছে, কারণ তা না হলে ভুল কথা বলে সে উপকারের বদলে ক্ষতি করে ফেলবে। যখন কোনো সমাজে কোনো অত্যাচারী আঘাত হানে তখন ওই দেশের আলেম ও জ্ঞানী ব্যক্তিদের দায়িত্ব হলো মৌখিকভাবে তার প্রতিবাদ করা এবং মানুষকে গাইডলাইন দেওয়া। আর যে ব্যক্তির ক্ষমতাও নেই, জ্ঞানও নেই সে চুপচাপ থাকবে, কিন্তু অন্যায়কে ঘৃণা করবে। অন্যায়কে ঘৃণা করা ঈমানের অংশ।

৩ – শাসক অত্যাচারী হলেও তার বিরুদ্ধে অস্ত্র না ধরা: স্কলারদের এ ব্যাপারে ইজমা’ (ঐক্যমত) রয়েছে যে, শাসক অত্যাচারী হলেও তার বিরুদ্ধে অস্ত্র ধরা যাবে না (ব্যতিক্রম ও বিস্তারিত জানতে পড়ুন:,,)। অত্যাচারী শাসকের বিরদ্ধে অস্ত্র ধরলে শাসক আরও হিংস্র হয়ে ওঠে, ফলে ক্ষয়ক্ষতি আরও বেড়ে যায়। বরং, অত্যাচারী শাসকের বিরুদ্ধে ধৈর্য্য ধরতে হবে, যেভাবে বনী ইসরাইলীরা ফেরাউনের অত্যাচারের সময় ধৈর্য্য ধরেছিলো। রাসূলুল্লাহ(সা)-এর মাক্কী জীবনে সুমাইয়া বিনতে খাইয়াত সহ অন্যান্য সাহাবীদের কুরাইশরা অত্যাচার করতে করতে মেরে ফেলেছিলো, রাসূলুল্লাহ(সা)-এর মাথায় উটের নাড়িভূড়ি ঢেলে দিয়েছিলো – কিন্তু তাই বলে আমাদের প্রিয়নবী মুহাম্মাদ(সা) কুরাইশদের বিরুদ্ধে অস্ত্র তুলে নিতে বলেননি, ধৈর্য্য ধরতে বলেছিলেন। তাবে-তাবেঈনদের যুগে ইরাকের অত্যাচারী গভর্নর হাজ্জাজ বিন ইউসুফ ১ লক্ষ ২০ হাজার মুসলিমকে হত্যা করেছিলো, যার মধ্যে বহু তাবেঈন/ তাবে-তাবেঈন ছিলেন; সেযুগের শ্রেষ্ঠ স্কলার হাসান আল বসরী তারপরেও হাজ্জাজের বিরুদ্ধে অস্ত্র ধরার জন্য মুসলিমদের অনুমতি দেননি

হুযায়ফা বিন আল-ইয়ামান(রা) রাসূলুল্লাহ(সা)-কে জিজ্ঞেস করলেন: “হে রাসূলুল্লাহ, আমরা তো অনেক মন্দের মধ্যে ছিলাম, আল্লাহর আমাদের (ইসলামের মাধ্যমে) ভালো  করলেন এবং আমরা এখন এই ভালোর মধ্যেই আছি। এই ভালো সময়ের পর কি আবার মন্দ সময় আসবে?” রাসূলুল্লাহ(সা) বললেন: “হ্যাঁ।” হুযায়ফা বিন আল-ইয়ামান(রা) জিজ্ঞেস করলেন: “আর সেই মন্দের পর কি আবার ভালো আসবে?” রাসূলুল্লাহ(সা) বললেন: “হ্যাঁ।” হুযায়ফা বিন আল-ইয়ামান(রা) জিজ্ঞেস করলেন: “আর সেই ভালোর পর কি আবার মন্দ আসবে?” তিনি(সা) বললেন: “হ্যাঁ।” হুযায়ফা জিজ্ঞেস করলেন: “এটা কিভাবে হবে?” তিনি (সা) বললেন: “আমার পরে এমন শাসক আসবে যারা আমার দিকনির্দেশনা ও সুন্নত মেনে চলবে না। তাদের কিছু লোকের মানুষের শরীরে শয়তানের হৃদয় থাকবে।” হুযায়ফা জিজ্ঞেস করলেন: “আমি যদি সে সময় পর্যন্ত বেঁচে থাকি তো কী করব, হে রাসূলুল্লাহ(সা)?” রাসূলুল্লাহ(সা) উত্তর দিলেন: “তুমি তাদের কথা শুনবে এবং আদেশ মেনে চলবে, এমনকি তোমার শাসক যদি তোমার পিঠে আঘাত করে এবং তোমার সম্পদ কেড়ে নেয় তবুও।” (বুখারী ও মুসলিম)

আব্দুল্লাহ(রা) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ(সা) বলেছেন: “তোমরা শীঘ্রই আমার পরে স্বজনপ্রীতি, পক্ষপাতিত্ব ও তোমাদের অপছন্দনীয় অনেক বিষয় দেখতে পাবে।” সাহাবীরা বললেন: “হে রাসূলুল্লাহ(সা)! ওই সময় কী করার জন্য আমাদেরকে নির্দেশ দেন?” তিনি(সা) বললেন: “তোমাদের উপর তাদের যে অধিকার রয়েছে তোমরা তা পূরণ করবে এবং তোমাদের (প্রাপ্য) অধিকার নিয়ে আল্লাহ তা’আলার নিকট প্রার্থনা করবে।” (বুখারী, তিরমিযী)

হাসান আল বসরী (রহিমাহুল্লাহ) বলতেন: “অত্যাচারী শাসকের ফিতনায় পড়লে মানুষ যদি আল্লাহকে ডাকতো, আল্লাহ তাদেরকে ফিতনা থেকে মুক্তি দিতেন। কিন্তু, সেটা না করে মানুষ তরবারীর শরণাপন্ন হয়, আর তাই তারা একটা দিনের জন্যও মঙ্গল বয়ে আনতে পারে না, ফিতনার মধ্যেই পড়ে থাকে।” এরপর তিনি নিচের আয়াতটি উদ্ধৃত করতেন: “এবং যে (বনী ইসরাইল) সম্প্রদায়কে দুর্বল মনে করা হতো তাদেরকে আমি আমার বরকতময় রাজ্যের পূর্ব ও পশ্চিম প্রান্তের উত্তরাধিকারী করলাম এবং বনী-ইসরাইল সম্বন্ধে তোমার প্রতিপালকের শুভবাণী সত্যে পরিণত হলো, যেহেতু তারা ধৈর্য ধারণ করেছিলো। আর ফেরাউন আর তার সম্প্রদায়ের নির্মিত শিল্পকর্ম ও প্রাসাদসমূহ আমি ধ্বংস করে দিলাম।” – (আল কোরআন ৭:১৩৭) [তাফসীর ইবনে আবি হাতিম]

শাসকের বিরুদ্ধে কখন অস্ত্র ধরা যাবে?

ইসলামের সাধারণ হুকুম হলো, খারাপ কোনো কিছুকে সরানোর জন্য তার চেয়েও বেশী খারাপ কিছু করা যাবে না। শাইখ উসাইমিন শাসকের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করার জন্য ২টি মূল শর্ত দিয়েছেন:

  • এক – যার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা হবে সে স্পষ্ট কুফরীতে লিপ্ত থাকতে হবে।
  • দুই – বিদ্রোহকারীদের যুদ্ধে বিজয়ী হওয়ার মতো সামর্থ্য থাকতে হবে। 

 শাইখ বিন বায আরো কিছু শর্ত যোগ করেছেন:

  • তিন – যুদ্ধে জিতলে যে ব্যক্তিকে নেতা করা হবে সে একজন প্রকৃত সৎ লোক এই ব্যাপারে নিশ্চিত থাকতে হবে।  
  • চার – বিদ্রোহের ফলে যদি পরিস্থিতির অবনতি হয় বা সিভিলিয়ানদের জানমালের ক্ষতির আশংকা থাকে তাহলে বিদ্রোহ বা যুদ্ধ করা যাবে না। 

[বিস্তারিত এখানে: http://ahlusunnahwaljamaah.com/2012/02/20/disbelieving-ruler/]

উল্লেখ্য, শাইখ ইয়াসির কাযী মনে করেন, যে হাদিসগুলোর উপর ভিত্তি করে এই ফতোয়াগুলি দেওয়া হয়েছে সেই হাদিসগুলোতে এমন শাসকের কথা বলা হয়েছে যারা ইসলামী শরীয়া অনুযায়ী রাষ্ট্র পরিচালনা করে। কিন্তু, যেসকল রাষ্ট্র ইসলামী শরীয়া অনুযায়ী চলে না, তাদের ক্ষেত্রে এই ফতোয়া ঢালাওভাবে প্রযোজ্য নয়। সেসব দেশের অত্যাচারী শাসকদের বিরুদ্ধে কিভাবে প্রতিবাদ করতে হবে তা সেই দেশের আলেমরাই সঠিকভাবে বলতে পারবেন [9]।

৪ – মুসলিমরা ঐক্যবদ্ধ থাকা: মুসলিম জাতির উপর যখন কোনো ফিতনা আসবে তখন মুসলিমদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে, সূরা কাহফে বর্ণিত গুহাবাসীর ঘটনা থেকে আমরা এই শিক্ষা পাই। অত্যাচারী রাজা যখন মুসলিমদের ইসলাম পালনে বাধা দিচ্ছিল এবং চরম অন্যায়-অত্যাচার করছিলো তখন মুসলিমেরা সকলে মিলে এক হয়ে গুহায় গিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলো। তাই, যখন ফিতনা আসবে তখন আমাদের মুসলিম ইমামের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, এমন ইমাম যিনি কোরআন ও সুন্নাহকে অনুসরণ করে চলেন। আর এরকম ইমাম না পেলে সকল দলমত পরিত্যাগ করে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলতে হবে।

হুযায়ফা ইবনু ইয়ামান (র)) হতে বর্ণিত। প্রিয়নবী রাসূলুল্লাহ(সা)-কে ফিতনার যুগ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে রাসূলুল্লাহ(সা) বললেন: “(ফিতনার সময়) জাহান্নামের প্রতি আহবানকারী এক সম্প্রদায় থাকবে। যে ব্যক্তি ওই সম্প্রদায়ের আহবানে সাড়া দেবে, তাকে তারা জাহান্নামে নিক্ষেপ করে ছাড়বে।” হুযায়ফা বললেন: “হে রাসূলুল্লাহ(সা)! তাদের কিছু বৈশিষ্ট্যের কথা আমাদের বর্ণনা করুন।” তিনি (সা) বললেন: “তারা আমাদেরই লোক এবং আমাদেরই ভাষায় কথা বলবে।” হুযায়ফা জিজ্ঞেস করলেন: “যদি এরূপ পরিস্থিতি আমাকে পেয়ে বসে, তাহলে কি করতে নির্দেশ দেন?” তিনি (সা) বললেন: “মুসলিমদের জামাআত ও ইমামকে আকড়ে থাকবে।” হুযায়ফা জিজ্ঞেস করলেন: “যদি তখন মুসলিমদের কোনো (সঙ্ঘবদ্ধ) জামাআত বা ইমাম না থাকে?” তিনি (সা) বললেন: “তখন সকল দলমত পরিত্যাগ করে সম্ভব হলে কোনো গাছের শিকড় কামড়িয়ে পড়ে থাকবে, যতক্ষণ না সে অবস্হায় তোমার মৃত্যু উপস্থিত হয়।” (বুখারী)

৫ – শতভাগ নিশ্চিত না হয়ে কোনো তথ্য শেয়ার করা থেকে বিরত থাকা: বর্তমান যুগে ফিতনার অন্যতম উৎস হলো টিভি, অনলাইন-অফলাইন সংবাদপত্র, ফেইসবুক, ইউটিউব, টুইটার ইত্যাদি। বর্তমান সময়ের মিডিয়াগুলো যে সংবাদ প্রকাশ করলে তাদের স্বার্থ উদ্ধার হবে শুধু সেগুলো প্রকাশ করে, সত্যকে মিথ্যার সাথে মিলিয়ে-মিশিয়ে এমনভাবে পরিবেশন করে যে, তাতে প্রকৃত ঘটনা তুলে ধরার পরিবর্তে তারা সূক্ষ্মভাবে তাদের দৃষ্টিভংগী তুলে ধরে। এসব সংবাদ মাধ্যমগুলোর বানানো খবরগুলো সম্বন্ধে নিশ্চিত না হয়ে ফেইসবুকে, অনলাইনে শেয়ার করার মাধ্যমে আমরা অনেক সময় নিজের অজান্তেই ভয়ানক সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় কলহের সূত্রপাত করি।

আমাদের মনে রাখতে হবে, প্রত্যেক ফেইসবুক লাইক, কমেন্ট আর প্রত্যেক শেয়ারের জন্য আমাদের জবাব দিতে হবে। কিন্তু, একথাও সত্য যে, আমাদের পক্ষে প্রত্যেকটি তথ্য ব্যক্তিগতভাবে ভেরিফাই করা সম্ভব নয়। কাজেই এক্ষেত্রে আমরা যদি এমন কোনো ব্যক্তি বা মিডিয়ার কাছ থেকে কোনো তথ্য পাই যাকে আমরা অতীতে একাধিক সময়ে ভেরিফাই করে সত্যবাদীরূপে পেয়েছি, শুধু তার থেকে পাওয়া তথ্যই শেয়ার করা উচিত হবে।  

রাসূলুল্লাহ(সা) বলেন: “কোনো মানুষের মিথ্যুক হওয়ার জন্য এটাই যথেষ্ট যে, সে যেটা শুনে সেটাই বলে।” – (মুসলিম)

আল্লাহ বলেন: “হে ঈমানদারগণ! যদি কোনো পাপাচারী তোমাদের নিকট কোনো বার্তা নিয়ে আসে তাহলে তোমরা তা পরীক্ষা করে দেখবে, যাতে অজ্ঞাতবশত: তোমরা কোনো সম্প্রদায়কে আঘাত না করো এবং পরে তোমাদের কৃতকর্মের জন্য অনুতপ্ত না হও।” (সূরা হুজুরাত ৪৯:৬)

৬ – বিভ্রান্তিকর সকল কিছু থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলা: যে মানুষ যে লেখা পড়ে, যার সাথে চলে সে তার মতো হয়ে যায়। ফিতনার সময় যেহেতু বেশীরভাগ মানুষই দিকনির্দেশনাহীনভাবে চলে, কোরান-সুন্নাহ থেকে দূরে সরে যায়, তাই একজন মুসলিম এই সময় সঠিক পথে থাকতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে, দরকার পড়লে নিজেকে সকল বিভ্রান্তিকর সংবাদমাধ্যম ও মানুষ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলবে। রাসূলুল্লাহ(সা) বুখারীতে বর্ণিত একটি হাদিসে বলেছেন যে, ফিতনার সময় ফিতনার দিকে (প্রয়োজনের অতিরিক্ত) তাকানো পর্যন্ত যাবে না, যে ফিতনার দিকে তাকাবে তাকেই ফিতনায় পেয়ে বসবে।

আবু মুসা(রা) হতে বর্ণিত। ফিতনা সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ(সা) বলেছেন: “এ সময় তোমরা ধনুক ভেঙ্গে ফেলো, ধনুকের ছিলা কেটে ফেলো, তোমরা ঘরের কোণে অবস্থান করো এবং আদমের ছেলে (হাবিল)-এর মত হয়ে যাও (যে তার ভাই তাকে খুন করতে উদ্যত হলে তাকে ক্ষমা করে দিয়েছিলো)।” (ইবনে মাজাহ, তিরমিযী)

 

উপসংহার

এই লেখায় আমি ফিতনার সময়ে একজন মুসলিমের কী করা উচিত তার একটা জেনারেল গাইডলাইন তৈরী করার চেষ্টা করেছি। লেখাটির মূল উদ্দেশ্য আমার নিজেকে গাইড করা, আর পাঠক যদি এর দ্বারা উপকৃত হয়ে থাকেন তো আলহামদুলিল্লাহ। মনে রাখবেন, এটা শুধুই একটা জেনারেল গাইডলাইন, কোনো সমাজের মানুষ কোনো নির্দিষ্ট ফিতনার সম্মুখীন হলে ওই সমাজের মুসলিমদের সুনির্দিষ্টভাবে কী করতে হবে তা ওই দেশের সম্মানিত ইসলামিক স্কলারেরা বলতে পারবেন।

 

References:

  1. Trials, tribulations and solutions – Dr. Yasir Qadhi
  2. Sanctity & value of life – Egypt, Syria, Burma – Dr. Yasir Qadhi
  3. Attitude towards fitnah – Shaykh Saalih Al-Munajjid (IslamQA)
  4. Ahlu sunnah wal jamaah on Rebelling Against The Ruler
  5. Islam Today on Rebelling Against The Ruler
  6. IslamQA.info on Rebelling Against The Ruler
  7. বাংলাদেশ এর বর্তমান পরিস্থিতিতে করণীয় – মতিউর রহমান মাদানী
  8. How to react when Prophet Muhammad (PBHU) is insulted? – Dr. Zakir Naik
  9. Seerah Pt. 73 – Battle of Mu’ta Pt. 2 – Yasir Qadhi
  10. Devil’s Trap – Hamza Yusuf
  11. Explanation of hadith no. 34 from Imam An-Nawawi’s 40 hadith – Islamic Online University’s free diploma course

 

লেখাটি প্রথম প্রকাশিত হয় এখানে: https://adnanfaisal.wordpress.com/2013/12/24/what-to-do-in-times-of-fitan/ 

Advertisements

6 thoughts on “ফিতনার সময়ে করণীয়

  1. পিংব্যাকঃ কিয়ামত নিকটবর্তী? (অনুবাদ) | আমার স্পন্দন

  2. পিংব্যাকঃ জিহাদ ও ক্বিতাল সম্পর্কে যে বিষয়গুলো আমাদের জানা থাকা উচিৎ | আমার স্পন্দন

  3. পিংব্যাকঃ আশুরা – যেদিন সাগর হয়েছিল দ্বিখন্ডিত, কারবালা হয়েছিল রক্তাক্ত (অনুবাদ) | আমার স্পন্দন

  4. পিংব্যাকঃ এ সময়ের ফিতনাহ: ভোগ, চারিত্রিক স্খলন এবং চরমপন্থার হাতছানি (অনুবাদ) | আমার স্পন্দন

  5. পিংব্যাকঃ সন্ত্রাসের সাথে জিহাদের সম্পর্ক আর বিয়ের সাথে পরকীয়ার সম্পর্ক একই (অনুবাদ) | আমার স্পন্দন

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s