মুহাম্মাদ ﷺ — অতুলনীয় মর্যাদাপ্রাপ্ত একজন মানুষ

king-fahd-gate-masjid-nabawi

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَنِ الرَّحِيم

وَالصَّلاَةُ وَالسَّلاَمُ عَلَى رَسُوُل اللّهِ

وَعَلَى اَلِهِ وَصَحْبِهِ أَجْمَعِيْنَ أَمَّا بَعْدُ

মহানবীর মহাজীবন ﷺ: আমাদের প্রিয় মানুষটির গল্প, তাঁর ভালোবাসার গল্প, তাঁর জীবনের গল্প – সহজ ভাষায় – ড. ইয়াসির কাযির লেকচার ও ড. সাল্লাবির বই অনুসারে।   এই সিরিজে ইনশাআল্লাহ্‌ ধারাবাহিকভাবে আমরা আমাদের প্রিয় নবী মুহাম্মাদ ﷺ-এর জীবনি ধীরে-ধীরে, ছোট-ছোট পোস্টের মাধ্যমে তুলে ধরব। 

কিন্তু প্রশ্ন দাঁড়ায় – কী বলব রাসূলুল্লাহ ﷺ সম্পর্কে? কীভাবে বলব রাসূলুল্লাহ ﷺ সম্পর্কে? আমাদের জ্ঞানই বা কতটুকু, আর আমাদের সামর্থ্যই বা কতটুকু? সেই ব্যক্তি সম্পর্কে কতটুকুই বা বলা যায় যার খ্যাতিকে সমুন্নত করার মহান দায়িত্ব আল্লাহ্ ﷻ নিজেই নিয়েছেন –

94:4

অর্থ: আর আমি আপনার খ্যাতিকে সমুচ্চ করেছি। (সূরা ইনশিরাহ ৯৪:৪)

এই আয়াতের ব্যাখ্যায় ইবনে আব্বাস(রা) বলেন – মহান আল্লাহ্ ﷻ তাঁর রাসূলের ﷺ খ্যাতিকে এমনই সমুন্নত করেছেন যে, যখনই আমরা তাঁর ﷻ নাম উচ্চারণ করি, তার প্রায় সাথে সাথেই তাঁর ﷻ রাসূলের ﷺ নামও উচ্চারণ করি। আমাদের শাহাদায় আমরা বলি “লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ”, ঠিক তারপরেই পড়ি “মুহাম্মাদুর রসূলুল্লাহ”; আযানে যেই পড়ি “আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ”, ঠিক এর পরেই পড়ি “আশহাদু আন্না মুহাম্মাদার রসূলুল্লাহ”; নামাজে দাঁড়িয়ে আল্লাহর ﷻ প্রশংসা করি, আর বসে তাঁর রাসূলের ﷺ প্রশংসা করি; নামাজ শেষে আমরা যেমনি আল্লাহর ﷻ যিকর করি, ঠিক তেমনি তাঁর রাসূলের ﷺ উপর দরূদ পাঠ করি।

আল্লাহ্ ﷻ তাঁর নবীর ﷺ মর্যাদা এতটাই সমুচ্চ করেছেন যে, এমন একটা সেকেন্ড নেই যেখানে পৃথিবীর কোনো প্রান্তে কেউ না কেউ বলছে “সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম”; আল্লাহ্ ﷻ তাঁর নবীর মর্যাদা এতটাই সমুচ্চ করেছেন যে, তাঁকে ব্যঙ্গ করে একটা কার্টুন ছাপালে পূর্ব থেকে পশ্চিমে প্রতিবাদ-প্রতিরোধ শুরু হয়ে যায়; আল্লাহ্ ﷻ তাঁর নবীর ﷺ মর্যাদা এতটাই সমুচ্চ করেছেন যে, তাঁর ﷺ মৃত্যুর প্রায় ১৫০০ বছর পরেও তাঁকে নিয়েই পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশী বক্তব্য দেয়া হয়, তাঁকে নিয়েই সবচেয়ে বেশী বই লেখা হয়।

আল্লাহ ﷻ তাঁর রাসূল ﷺ সম্পর্কে আরো বলেছেন –

21:107

অর্থ: আমি তো আপনাকে বিশ্বজগতের প্রতি শুধু রহমত (দয়া) রূপেই পাঠিয়েছি। (সূরা আম্বিয়া ২১:১০৭)

রাসূল ﷺ নিজে ছিলেন রহমত, আল্লাহ্‌ ﷻ তাঁকে যে বাণী দিয়েছেন তা আমাদের জন্য রহমত, তাঁর ﷺ শিক্ষা আমাদের জন্য রহমত। কীভাবে বুঝব আমি তাঁকে ﷺ ঠিকভাবে অনুসরণ করছি? যখন আমি আমার চারপাশের মানুষের জন্য রহমত হবো বুঝতে হবে শুধু তখনই আমি তাঁকে ﷺ ঠিকমতো অনুসরণ করছি।

লেখাটি প্রথম প্রকাশিত হয় লেখকের ব্যক্তিগত ব্লগে।  

Photo credit: Azfar Ahmad 

Advertisements

3 thoughts on “মুহাম্মাদ ﷺ — অতুলনীয় মর্যাদাপ্রাপ্ত একজন মানুষ

  1. পিংব্যাকঃ কুরআন ও হাদিসে বর্ণিত মহানবীর ﷺ কিছু নাম | আমার স্পন্দন

  2. পিংব্যাকঃ মহানবীর ﷺ কিছু অনন্য বৈশিষ্ট্য | আমার স্পন্দন

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s