আপনার সন্তানদের দিয়ে ঘরের ছোটোখাটো কাজ করিয়ে নিন

hammer-tools

ওলে আমাল সোনা মনি, আমাল যাদু, আমাল জানের জান, আমাল চাঁদ, আমাল কলিজার টুকলা…

বাচ্চারা আসলেই কি যেন একটা যাদু। নইলে অমন করে ভালোবাসা আসে কেমন করে নিজ সন্তানের জন্য বা কোনো শিশুর জন্য? আমি হাজার কথায় লিখে বোঝাতে পারবো না যে, কী সেই গোপন রহস্য যার জন্য আমরা আমাদের সন্তানদের এত্তো ভালোবাসি! অদ্ভুত একটা সম্পর্ক গড়ে ওঠে আমাদের সন্তানের সাথে। বড় হতে থাকে সন্তানরা আমাদেরই চোখের সামনে দিনে দিনে ক্ষনে ক্ষনে।

ইদানিং দেখেছি আমরা আমাদের সন্তানদের কেমন যেন অদ্ভুত এক জীবনের লক্ষ্য নিয়ে বড় করছি। বিস্তারিত পড়ুন

Advertisements

সন্তান প্রতিপালন বিষয়ে একটি হাদিস হতে কিছু উপলব্ধি

Photo credit: commons[dot]wikimedia[dot]org/wiki/File:YY_Muslim_Children_in_Bhopal.jpg

Photo credit: commons[dot]wikimedia[dot]org/wiki/File:YY_Muslim_Children_in_Bhopal.jpg

একজন মুসলিম শিশ‌ু সন্তানকে সাত বছর বয়স থেকে সলাত আদায়ের নির্দেশ দিতে বলা হয়েছে বা আহ্বান করতে বলা হয়েছে। কিন্তু, আমরা জানি যে, প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত সলাত আদায় ফরয নয়। তারপরেও কেন এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে? নিশ্চয়ই চিন্তাশীলদের জন্য এই হাদিস হতে সন্তান প্রতিপালন বিষয়ে বিরাট কিছু একটা উপলব্ধি করার আছে। হয়তো এখানে আছে বড় দিকনির্দেশনা। কারণ, এখানে তিনটি উপাদান আছে:  বিস্তারিত পড়ুন

সালাত আদায় করা নিয়ে আমার কিছু উপলব্ধি

Photo credit: Omar Chatriwala, via flickr[dot]com/photos/omarsc/4638491611/

Photo credit: Omar Chatriwala, via flickr[dot]com/photos/omarsc/4638491611/

সালাত আদায় (নামাজ) নিয়ে আমার কিছু উপলব্ধি হয়েছে, আর সেগুলিই একটু শেয়ার করছি মাত্র। সালাতের যত ফজিলত আছে সেগুলিকে অবশ্যই উপরে রেখেই আমি আমার কিছু উপলব্ধিকে প্রকাশ করছি। আর আমি শুধু আমার নিজের উপলব্ধির কথা বলছি, যা আমি অন্য কোথাও কখনো পড়িনি।

প্রথম উপলব্ধি:

নামাজকে ফরজ করা হয়েছে। তার মানে, ওই পাঁচ ওয়াক্ত আমারা যে কাজেই থাকি না কেন, আল্লাহ্‌র কাছে সেজদা দিতে হবেই হবে। সালাত আদায় করতে হবেই হবে। কারণ এটা ফরজ।

এবার এই হুকুম থেকে আমি যে উপলব্ধি পেলাম তা এমন:  বিস্তারিত পড়ুন

এমন লজ্জার মৃত্যু যেন না হয়

Photo credit: photozou[dot]jp/photo/photo_only/1934405/174277585

Photo credit: photozou[dot]jp/photo/photo_only/1934405/174277585

প্রতিদিন নানা মাধ্যমে মৃত্যুর খবর পাই আমরা। তারপরেও সম্ভবত মৃত্যুকেই আমরা সবচেয়ে বেশি ভুলে থাকি। “প্রতিটি জীবনের মৃত্যু হবেই” এই সত্য নিয়ে কারো মাঝে বিতর্ক নেই। মৃত্যু যখন-তখন হতে পারে এটাও সকলেই মানি, কিন্তু তাও মৃত্যুকেই সবচেয়ে বেশি ভুলে থাকি আমরা। ভুলে থাকি বলেই হয়তো আমরা অনেক নিষিদ্ধ কাজ করতেও বিন্দুমাত্র ভয় পাই না।

নির্দিষ্ট কিছু অপরাধের কথাই ধরা যাক:

(১) যে স্ত্রী পরকীয়া করছে, তার পুরুষ-সঙ্গীর মৃত্যু হতে পারে তার একান্ত সান্নিধ্যে থাকা অবস্থাতেই। কি বিপদেই না পড়বে তখন সেই মহিলা তার পুরুষ-সঙ্গীর লাশ নিয়ে!

(২) একইভাবে, যে স্বামী অফিসের ট্যুরের নাম করে গার্লফ্রেন্ড নিয়ে কোথাও অবস্থান করছে তার গার্লফ্রেন্ড টয়লেটে পিছলে মাথার আঘাতে বিস্তারিত পড়ুন

শিশু সন্তানকে মারধোর করার দীর্ঘমেয়াদী কুফল

আমরা যারা বড় হয়ে গেছি তারা অনেক সময় বলি: “মা-বাবা মাইরের উপর রাখতো, সেটাই ভালো করতো। আজ কালকার মা-বাবাদের মধ্যে কি যেন হইছে। বাচ্চারে নাকি মারা ঠিক না। আরে, মাইরের উপর ওষুধ নাই। আজ যদি আমার বাপ আমারে না মারতো তবে আজ আমি এমন থাকতাম না।”

আমি অসহমত করবো না কথাগুলির সাথে। সেই সময়ের জন্য, সেই সময়ের জ্ঞানে হয়তো সেটাই উপযুক্ত মাধ্যম ছিলো। সেই কালের মা-বাবারা যারা তাদের সন্তানদের মাইরের উপর রাখতেন তারা শিশুদের নিয়ে তেমন চিন্তা করতেন না। ছিলো না শিশু লালন-পালনের জ্ঞান। আমার বাবার জন্ম হয়েছে অস্বাস্থ্যকর গোসলখানায়! তবে চিন্তা করে দেখুন, আমার দাদা-দাদীর জন্ম কেমন যত্নে হয়ে থাকতে পারে! শিশুর জন্ম আনন্দের হলেও, শিশুর জন্মের প্রস্তুতি, স্বাস্থ্যগত জ্ঞান ইত্যাদির অভাব ছিলো (এখনও আছে)। তারা পৃথিবীর কোনো শিশুর ভেতরই ভালো ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখাতে পারতেন না। লেখাপড়া করে ভালো রেজাল্ট না করা পর্যন্ত তারা তাদের কোনো সন্তানকেই তেমন দাম দিতেন না। অথচ, তাদের প্রতিটি সন্তানের মাঝেই ছিলো অনেক সম্ভাবনা। কিন্তু, যে সন্তান প্রকৃতিগতভাবে নিজ থেকে ভালো কিছু দেখাতে পেরেছে হয়তো সেই সন্তান বেশি আদর-কদর পেয়েছে, আর যে সন্তান পারেনি সে মা-বাবার মাইরতো খেয়েছেই, সাথে বড় ভাইবোনেরও। শাসন আর মাইর খেতে খেতে বড় হয়ে এখন সেই সন্তানটাই বলছে, “মা-বাবা মাইরের উপর রাখতো, সেটাই ভালো করতো। আজ কালকার মা-বাবাদের মধ্যে কি যেন হইছে। বাচ্চারে নাকি মারা ঠিক না। আরে, মাইরের উপর ওষুধ নাই। আজ যদি আমার বাপ আমারে না মারতো তবে আজ আমি এমন থাকতাম না।”

আপনারা যারা দাবী করছেন যে, ছোটবেলায় অনেক মাইর আর শাসনের উপর ছিলেন বলেই আজ এমন ভালো আছেন, তাদের বলি, হয়তো আপনি বিস্তারিত পড়ুন