প্রতিদিন ২৫ মিনিট করে হলেও বই পড়ুন

eyeglass-and-book

আমরা আজ অনেক পড়ি। পত্রিকা পড়ি। ওয়েবসাইট পড়ি। ফেসবুকে স্ট্যাটাস পড়ি। ছবির ক্যাপশন পড়ি। কাড়িকাড়ি মন্তব্য পড়ি। বিজ্ঞাপন, নোটিশ পড়ি। ইনস্ট্রাকশন ম্যানুয়াল, নতুন স্মার্টফোনের বিজ্ঞাপন, স্পেসিফিকেশন—কত কী যে পড়ি তার ইয়ত্তা নেই।

মানুষ সৃষ্টির পর স্রষ্টা তাকে প্রথমে বিভিন্ন জিনিসের নাম শিখিয়েছেন। শেষ নাবির ﷺ কাছে প্রথম নির্দেশনা পাঠিয়েছেন: “পড়ো”। স্রষ্টা যখন আমাদেরকে কিছুর আদেশ করেন, তার মানে সেটা অবশ্যই আমাদের স্বভাব-অনুকূল। তিনি আমাদের এমন কিছুর আদেশ করবেন না, যা আমাদের প্রকৃতিবিরুদ্ধ।  বিস্তারিত পড়ুন

Advertisements

জীবনে প্রতিনিয়ত আসা পরিবর্তনের প্রতি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি যেমনটি হওয়া চাই

watch-tower-near-flower

পরিবর্তন আমরা পছন্দ করি না। আমরা পরিবর্তনকে সন্দেহের চোখে দেখি। পরিবর্তন সবসময়ই খারাপ না। পরিবর্তনের প্রতি রিজিডিটি না দেখিয়ে আদৌ সে পরিবর্তনের দরকার আছে কি না সেটা নিয়ে আলাপ আলোচনা করে তারপর সিদ্ধান্ত নিলে ভালো হয়। পরিবর্তনের ডাক দিয়েছে অতএব সে খারাপ – এটা ভয়ের চিহ্ন। বিস্তারিত পড়ুন

কাজের সময়ে মনোযোগ ধরে রাখার চারটি কার্যকরী কৌশল

man-working-at-desk

অফিসে বসে কোডিঙের কাজ করছিল রাজন। বেশ ভালোভাবেই এগোচ্ছিল। হঠাৎ করে টেবিলের উপর রাখা স্মার্টফোনের পর্দাটা জ্বলে উঠল। ক্ষণিকের জন্য নজর সরে গেল ওদিকে। স্মার্টফোন যদিও সাইলেন্ট করা ছিল, কিন্তু তারপরও আলো জ্বলে ওঠায় বাধ্য হয়ে নজর সরে গেল।

আপাতদৃষ্টিতে এমন মনোযোগব্যাঘাতকারী জিনিসগুলো মামুলি মনে হলেও, যারা জ্ঞানসংক্রান্ত (কগনিটিভ) কাজ করেন, তাদের জন্য এগুলো যন্ত্রণাদায়ক। বিস্তারিত পড়ুন

কেন আমরা উৎসাহ হারিয়ে ফেলি? কীভাবে মোটিভেশন বাড়ানো যায়?

colorful-leaves

আদিবার সবটাতেই আলসেমি। অ্যাই! ভার্সিটিতে ফটোগ্রাফি ক্লাব খুলেছে, যাবি? হ্যা.. যাব? কী হবে গিয়ে? মা বলেন, পড়াশুনা কর্, শুনলে ওর গা ঝিমঝিম করে। এত পড়ে কী হবে? এমন না যে ও বিষণ্নতার রোগী, বা খুব দুঃখী, এমনিই ভালো লাগে না।

আমরা সোজা ভাষায় যাকে বলি সুখের অসুখ – তাই নিয়েই আজকের লেখা। মোটিভেশন বা উৎসাহ যেকোনো কাজের আন্তরিকতার প্রধান নিয়ামক। ওটা না থাকলে কাজে এগোন সম্ভব না। বিস্তারিত পড়ুন

নট-টু-ডু লিস্ট করার গুরুত্ব

Idea sketch

আমরা সবসময়ই শুনে থাকি – পজিটিভ চিন্তা করো, প্ল্যান করার সময় টু-ডু লিস্ট তৈরী করো, সবসময় ভালোটা নিয়ে ভাবো ইত্যাদি। কিন্তু, বাস্তব হলো যে, নেগেটিভ চিন্তারও কিন্তু দরকার আছে। আমরা যা করছি সেটাতে আমরা সফল না হলে কী করব সেটার জন্যও একটা প্ল্যান থাকা দরকার। পজিটিভের আশা আমরা রাখব, কিন্তু নেগেটিভটাকেও একেবারে উড়িয়ে দিব না।  বিস্তারিত পড়ুন